ষাঁড়ের পেটে সোনার হার -দুল,গোবরে অলঙ্কার পেতে ষাঁড়কে আনা হল বাড়িতে

0

Last Updated on

ষাঁড়ের পেটে সোনার দুল-হার | আর তাই গোটা পরিবার অপেক্ষায় কখন সেই ষাঁড় মলত্যাগ করবে | মানে গোবরের সঙ্গে যদি বেরিয়ে আসে তাদের ওই অলঙ্কার | ঘটনাটি হরিয়ানার সিরসার | পরিবারের কর্তা জনকরাজের কথা মত,তার বৌ ও পুত্রবধূ রান্নাঘরের ফেলে দেওয়া সবজির খোসা ছাড়াও নানা জিনিস ওই ষাঁড়টিকে খেতে দেয় | তাদের বাড়ির বাইরে রাখা পাত্রে দিয়ে চলে আসে তারা |খানিক বাদে খোঁজ পড়ে তাদের খুলে রাখা হার,কানের দুলের | কাজে অসুবিধের জন্য তারা রান্নাঘরের এক জায়গায় সেগুলি খুলে রেখেছিল বলে পরে তাদের মনে হয় | তার উপরেই জমা হতে থাকে ওই বর্জ্যগুলি |

আরও পড়ুন: গরুর পেটে বাহান্ন কেজির প্লাস্টিক, চিকিৎসায় খরচ মাত্র একশ চল্লিশ টাকা

পরিবারটির অনুমান সত্যি হয় যখন তারা তাদের বাড়ির সিসিটিভি দেখে | সেখানে দেখা যায় রান্নাঘরেই তারা সেই বহুমূল্য অলঙ্কার গুলি খুলে রাখতে | এরপরই গোটা শহরে ওই ষাঁড়ের খোঁজে বেরিয়ে পড়েন বাড়ির কর্তা সহ পরিবারের সদস্যরা | অনেক খুঁজে ষাঁড়টিকে পাোযা গেলে তারা তাকে বাড়িতে আমনার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয় | পরিবারটির তারপর শরণাপন্ন হয় পশু চিকিতসকের | শেষ পর্যন্ত তার চেষ্টায় ঘুমের ওষুধ দিয়ে ষাঁড়টিকে জনকরাজের বাড়ির সামনে আনা সম্ভব হয় | এখন ওই অলঙ্কারের ফেরত পাওয়ার একমাত্র ভরসা ওই ষাঁড়ের গোবর | যদিও সেখান থেকে ৪০গ্রামের ওই গয়না উদ্ধার একপ্রকার অসম্ভব বলেই মনে করছেন শল্য চিকিতসকেরা | তাঁদের মতে, ষাঁড়ের পেটে থাকা রুমেন বলে বিশেষ এক অঙ্গে এই ধরনের অখাদ্য উপাদান গুলি জমে যা প্রায় ২৫০লিটার জলের ধারণ ক্ষমতা যুক্ত জায়গা | সেখান থেকে গোবরের মাধ্যমে এই জিনিসগুলির বেরোনোর সম্ভাবনা প্রায় নেই বললেই চলে | একমাত্র রুমেন কেটেই এই অলঙ্কার উদ্ধার সম্ভব বলে মত তাঁদের |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here