আমফানের তিনদিন পরেও জল-বিদ্যুৎহীন কলকাতা ও পার্শ্ববর্তী বিস্তীর্ণ অঞ্চল ,বিক্ষোভে সাধারণ মানুষ

0
water-power Off Kolkata and surrounding areas, ordinary people in protest

Last Updated on

২০শে আমফানের তাণ্ডবের পর কেটে গিয়েছে তিনটে দিন। তবুও কলকাতার চিত্র বদলায়নি এতটুকুও। ফলে কলকাতা ও কলকাতা সংলগ্ন এলাকার মানুষের মনে তৈরি হচ্ছে ক্ষোভ। বিভিন্ন জায়গায় স্থানীয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে তাদের অভাব অভিযোগ উগরে দিয়েছেন মানুষেরা ।

আরো পড়ুন :আইসিএমআরের নির্দেশিকা মেনে স্বাস্থ্যকর্মী ও ডাক্তারদের পরীক্ষার আর্জি চিকিৎসক সংগঠনের,নতুবা অচিরেই বন্ধ হবে পরিষেবা

কোন কোন জায়গায় ঝড়ের সময় থেকে আজ অবধি বিদ্যুৎহীন ও জলমগ্ন অনেক এলাকা। গাছ উপড়ে বন্ধ যোগাযোগ ব্যবস্থা। বন্ধ কলকাতার বিস্তীর্ণ অঞ্চলের নেট ও কেবল যোগাযোগ। ফল কার্যত বিচ্ছিন্ন জন জাতি ।

কলকাতা সংলগ্ন ইএম বাইপাসের ধারে আনন্দপুর থানা চত্বরে উত্তেজিত জনতার সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়ে পুলিশ কর্মী। আহত হওয়ার খবর মেলে ওসির। জল ও বিদ্যুৎতের দাবিতে অশান্তির খবর মেলে বেহালা ঠাকুরপুকুর অঞ্চলেও । প্রশ্ন ওঠে এত আগাম সতর্কবার্তার পরেও কেন পৌরসভা এ বিপর্যয় মোকাবিলার ন্যুনতম কাজ করে উঠতে পারেনি । ৭২ঘন্টা পরেও কেন বিচ্ছিন্ন রাজপথ?

বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হওয়ার জন্য যদিও দোষ নিজে ঘাড়ে রাখতে চাননি মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, সিইএসই কে তারা নয়। বরং রাজ্যব্যাপী বিদ্যুৎ সরবরাহের বরাত দেওয়া হয়েছিল বামফ্রন্ট আমলে। কিন্তু তা সত্ত্বেও তাদেরকে এ পরিষেবা চালু ও স্বাভাবিক করার একটি সময়সীমা বেঁধে দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ।

আরো পড়ুন :পরিযায়ী শ্রমিকদের রাজ্যে ফেরাতে সহযোগিতা করছে না পশ্চিমবঙ্গ প্রশাসন,মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের

শুধু কলকাতা নয়,লাগোয়া হুগলির নানা জায়গাতেও একইভাবে উত্তরপাড়া,ভদ্রেশ্বরের মত জায়গায় মানুষ প্রশাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখায়। তাদের মতে টানা এই পরিষেবা না থাকায় বাড়ির বাচ্চা ও বয়স্ক মানুষদের নিয়ে চরম দুর্ভোগের মুখে পড়তে হচ্ছে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here