এনআরসির জন্য আতঙ্কিত না হয়ে নাম তুলুন এনপিআর-এ

0
register-your-name-in-NPR-now

Last Updated on

এনআরসি মানেই বিজেপির চক্রান্ত | মুসলমানদের দেশ ছাড়া করানোর ফন্দি ফিকির | এনআরসি মানেই ডিটেনশন ক্যাম্পে রাখা | এনারসি মানেই ভিটেমাটি চাঁটি অবস্থা | কিন্তু এনআরসি নিয়ে অযথা কেন এই উতকন্ঠা তা কেউ পরিষ্কার করে জানাচ্ছে না | রইজিং বেঙ্গলের এই বিশেষ প্রতিবেদন শুধু মানুষকে আতঙ্ক মুক্ত করতে | আজানা আতঙ্কে যেন আর কেউ প্রাণ না হারন এই রাজ্যে |

প্রথমেই বলে রাখা ভালো রাজ্যব্যপী ৩০শে সেপ্টেম্বরের মধ্যে যে কর্মসূচি চলছে তা হল এনপিআর | যার সঙ্গে এনআরসির প্রত্যক্ষ কোন যোগ নেই |পুরো কথা হল ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্টার| সোজা বংলায় জনগণনা | দেশের জনগণনার জন্য একাজ হয়েই থাকে নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধানে | প্রশসনের উপর চাপ কমানের জন্যই এবার সে কাজ ডিজিটালি করার পরিকল্পনা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার | নাম নথিভূক্ত করা ছাড়া আর কোন কাজই নেই সেখানে কারোর | তারজন্য প্রত্যেকের কাছে থাকা ভোটার কার্ডই যথেষ্ট | নির্ভুল তথ্য থাকলে শুধুই রেজিস্টার করা আর না থাকলে তাকে সংশোধন করা ,এসবই সম্ভব ওই ওয়েবসাইটিতে ঢুকে| এটি হল এনপিআর |

আরও পড়ুন – চোরাপথে বনগাঁ সীমান্তে দিয়ে অনুপ্রবেশের চেষ্টা, বিএসএফের হাতে ধৃত তিন বাংলাদেশের নাগরিক

আর এনআরসি অসম ছাড়া এখনই কোথাও লাগু করা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়নি কেন্দ্রীয় সরকার | বিজেপির প্রথম সারির নেতারা যতই হঁক পাড়ুক না কেন এনআরসিতে নাম তুলতে অক্ষম মানুষগুলিকে রাখতে যে খরচ সরকারের হবে তা এখনই নিতে রাজি হবে বলে মনে করছেন না পর্যবেক্ষকেরা | শুধুমাত্র অসমে তা কার্যকর করতে গিয়ে সরকারের খরচ হয়েছে কমবেশি ১২২০কোটি টাকা | প্রসঙ্গত অসমের এনারসির ক্ষেত্রে কিন্তু বিজেপি সরকারের কোন হাত ছিল না | কংগ্রেস প্রধামন্ত্রী রাজীব গান্ধী অসম চুক্তি অনুযায়ী সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে এই এনআরসি তালিকা করা হয়েছে | আগেও দুবার দেশ ব্যাপী এই তালিকা তৈরি হয়েছিল |

আরও পড়ুন – পশ্চিমবঙ্গে এনআরসির পক্ষে জোরালো সওয়াল রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের

যদি প্রয়োজনীয় নথি না থাকে তার জন্যও ব্যবস্থা আছে | রাজ্য সরকারের আর্কাইভ থেকে মিলবে গেজেটে থাকা সব তথ্যই তাও খুব সামান্য টাকার বিনিময়েই |তাই অহেতুক আতঙ্কে না থেকে চুপ করে নিজের নাম উঠিয়ে বসে থাকা ছাড়া আর কিছুই করণীয় নয় বঙ্গবাসীর কাছে |

আসলে এনআরসির রাজনীতিকরণ ফায়দা লোটার চেষ্টা করছে প্রতিটি দলই | মানুষকে ভয় দেখিয়ে নিজেদের দলের আনুগত্য কেনার চেষ্টায় মরিয়া নেতারা আসল কথাটিই লুকিয়ে ভয়ের বাতাবরণ তৈরি করছেন | এরাজ্যের সংবাদমাধ্যমের ভূমিকাও আশানুরূপ নয় | এনআরসিতে কতজন মারা গেল তা না প্রচার করে বরং এনপিএ ও এনআরসি বিষয়গুলি নিয়ে আরও বিশদে জনসাধারণকে জানানোর উদ্যোগ নিতে হোতো তাদেরকেই | তা না করে রাজনৈতিক নেতাদের মত এনআরসি পক্ষে বা বিপক্ষে জোরালো সোয়াল করতেই ব্যস্ত থাকতে দেখা যাচ্ছে তাদের |