পুজোতে ভোজনরসিক বাঙালির পাতে পদ্মার ইলিশ এনে দেবে চওড়া হাসি

0

Last Updated on

রাইজিং বেঙ্গল ডেস্ক : ভোজনরসিক হিসেবে তালিকায় সর্বপ্রথম নামটি যে বাঙালির এ বিষয়ে কোনো সন্দেহের অবকাশ নেই । দুর্গাপুজোর মরসুমে বাঙালির রসনা যেন আরও কয়েকগুণ বেড়ে যায়। পুজোর মুখে বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে রফতানির অনুমতি মেলায় দীর্ঘ সাত বছর পর বাধা কাটিয়ে কলকাতা,হাওড়া সহ বিভিন্ন বাজারে পাওয়া যাচ্ছে বাংলাদেশের সুস্বাদু ইলিশ । ভোজনরসিক বাঙালিদের কাছে নিঃসন্দেহে এ এক বড়ই সুখবর। কলকাতায় বাজারে এবার মোট ৫০০ মেট্রিক টন বাংলাদেশি ইলিশের জোগান মিলবে । যার মধ্যে ৪০ মেট্রিক টন ইলিশ ইতিমধ্যে রাজ্যে ঢুকে পড়েছে । বাকিটা চলতি মাসের ১০ তারিখের মধ্যেই ধাপে ধাপে ঢুকবে । বাংলাদেশ সরকার ২০১২ সালে ভারতে ইলিশ রফতানির উপরে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল । তিস্তা জলবন্টন নিয়ে দুদেশের কূটনৈতিক অবস্থান যে দূরত্ব তৈরি হয়েছিল,তার জেরেই পশ্চিমবঙ্গে পদ্মার ইলিশের ব্যাপক চাহিদা থাকলেও বাংলাদেশের ইলিশের স্বাদ থেকে দীর্ঘদিন বঞ্চিত ছিল বাঙালি । পুজোর সময় যাতে কলকাতা সহ রাজ্যের বিভিন্ন বাজারে বাংলাদেশের ইলিশ পাওয়া যায় সে ব্যাপারে দু’দেশের মাছ ব্যবসায়ীরা মাসখানেক আগে থেকেই উদ্যোগী হন । সেইসঙ্গে উদ্যোগ নেয় দু’দেশের সরকারও। সোমবারই বাংলাদেশ সরকার ৫০০ মেট্রিক টন ইলিশ রফতানির অনুমতি প্রদান করে। স্বভাবতই এতে খুশি এপার বাংলার মাছ ব্যবসায়ীরা। পুজোর সময় বাঙালির পাতে অবশেষে দেখা মিলবে ইলিশের রকমারি পদ। এ বছর নানা কারণে ইলিশের উৎপাদন কম হওয়ায় বর্ষার মরসুমেও বাজারে ইলিশের ঘাটতি ছিল। তাই এই ইলিশ দেরিতে হলেও যে বাঙালির রসনা তৃপ্ত করবেই তা বলাই বাহুল্য। রপ্তানির উপর বাংলাদেশ সরকার নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ায় মাছ ব্যবসায়ীরা খুব আশাবাদী । মঙ্গলবার সকালে হাওড়ার হোলসেল ফিস মার্কেটেও এসে পৌঁছেছে বাংলাদেশের ইলিশ । এই কারণে ভোর থেকেই ভিড় ছিল পাইকারি মাছ ব্যবসায়ীদের । মঙ্গলবার সকালের দিকে এক থেকে দেড় কিলো ওজনের বাংলাদেশের ইলিশ পাইকারি মাছ বাজারে বিকোয় ১,৬০০ টাকা প্রতি কেজিতে । পরে ১,০০০ টাকা থেকে ১,২০০ টাকা প্রতি কেজিতেও পাইকারি বাজারে ইলিশ মিলেছে । ভোজনরসিক বাঙালির কাছে এই পদ্মার ইলিশ পুজোর সময় যে এবার বাড়তি পাওনা তা বলাই বাহুল্য |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here