অবৈধ সম্পর্কের জেরে গৃহবধূকে উলঙ্গ করে গ্রামের রাস্তায় ঘোরানের অভিযোগ

0

Last Updated on

অবৈধ সম্পর্কের মাসুল দিতে হল এক মহিলাকে | বারবার পর পুরুষের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ার ঘটনায় এলাকার মানুষ ক্ষুদ্ধ হয়ে
সেই মহিলাকে উলঙ্গ করে মারধর করে বলে অভিযোগ | এই অবস্থায় ঘোরানো হয় গোটা গ্রামে | গোটা গ্রামের বাসিন্দাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে ওই মহিলার পরিবার | গোটা গ্রাম চড়াও হয় অগত্যা বাড়ি ছেড়ে ওই গৃহবধূ বর্তমানে পুলিশ ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছে | ঘটনাটি ঘটে নানুর থানার খুজিটিপাড়ার।

আরও পড়ুন :তান্ত্রিক সেজে জালিয়াতির অপরাধে ধৃত দুই বাংলাদেশি নাগরিক,ইসমাইল হোসেন এবং মহম্মদ বকুল খন্দকার

গ্রামবাসীদের অভিযোগ নানুর থানার খুজুটিপাড়ার টগরি লোহার নামে ওই মহিলার বিয়ে হয়েছিল কড্ডা গ্রামের মাখন লোহারের সঙ্গে | ১০বছরের বিবাহিত জীবনে তাদের দুটি সন্তান হয় | কিন্তু গ্রামের অপর এক যুবকের সঙ্গে টগরি ২০১১ সালে সব ফেলে ঘর ছেড়ে পালিয়ে যায় | তবে সে সম্পর্ক বেশি দিন স্থায়ী হয় না | ২০১২ সালে ফিরে আসে টগরি | পুরো ঘটনা জানিয়ে শালিশির দরবার করে সে | সেই অভিযোগের ভিত্তিতে ২০১২ সালে রঞ্জন লোহার ও তাকে এপ্রিল মাস সালিশি সভায় ডাকা হয় | সব শোনার পর গ্রামের মাতব্বরেরা রঞ্জন লোহারকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করে |

আরও পড়ুন :কেতুগ্রাম ও জিয়াগঞ্জে দুর্গা প্রতিমার উপর আক্রমণে এখনও গ্রেফতার নয় কেউই

এলাকার তৃণমূলের নেতাদের চেষ্টায় ফের তার প্রথম স্বামী মাখন ও টগরির ভাঙা সম্পর্কের জোড়া লাগে । টগরি লোহার প্রথম পক্ষের স্বামী মাখন লোহার এর সঙ্গে একটি ভাড়া বাড়িতে থাকতে শুরু করে । বেশ কিছুদিন কেটে যাওয়ার পর টগরি আবারও নতুন সেই খুজবি পাড়ায় আবার এক যুবকের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে | তবে বিষয়টি জানাজানি হয়ে যায় | এলাকার মানুষ সেই অবৈধ সম্পর্কের জন্য চাপ দিতে থাকে ওই যুবককে | তার জেরেই ওই যুবক বৃহস্পতিবার বিষ খেয়ে আত্মঘাতী করে বলে জানা যায় | তারপরই এলাকার মহিলারা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে টগরির উপর | চড়াও হয় টগরির মায়ের বাড়িতে | সেখান থেকে বের করে রাস্তা দিয়ে উলঙ্গ করে মারধর করার অভিযোগ ওঠে ওই এলাকার মহিলাদের বিরুদ্ধে | গোটা গ্রাম গ্রামে ঘোরানোর সঙ্গে সঙ্গে ভাঙা হয় টগরির মায়ের বাড়িও |পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে টগরিকে উদ্ধার করে খুজুটিপারা পুলিশ ক্যাম্পে আশ্রয় দেয় |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here