যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকলেই মারবো, এবিভিপির সুরঞ্জনকে হুমকি ফেসবুকে

0
ABVP's-Suranjan

Last Updated on

নিজস্ব প্রতিনিধি: গবেষণা সংক্রান্ত বিষয়ই হোক কিংবা রাজনীতি, শেষ কয়েক বছরে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় যেন বিতর্কেরই অারেক নাম। গত বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও গায়ক বাবুল সুপ্রিয় বিশ্ববিদ্যালয়ে এবিভিপি-র নবীন বরণ অনুষ্ঠান উপলক্ষে আমন্ত্রিত ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশের সময় তাঁকে আটক করে হেনস্থা করে বাম সংগঠনগুলি। শুধু তাই নয়, তাঁর চুলের মুঠি ধরে ও তাঁর জামাকাপড় ছিঁড়ে তাঁকে মারধোরও করা হয় বলে অভিযোগ বাম সংগঠনগুলির বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন – অরুণাচলের স্কুল অন হুইলসের সফল প্রয়োগ,আগ্রহ বাড়াচ্ছে খুদে পড়ুয়াদের

অভিযোগ এটাও যে বদলা নিতে এবিভিপি-র সদস্যরা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ঢুকে এসএফআই-এর ইউনিয়ন রুম ভেঙ্গে ফেলে। ঘটনা পরবর্তী সময় থেকে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের মাসকম পিজি-র ছাত্র ও এবিভিপি-র যাদবপুরের সভাপতি সুরঞ্জন সরকার ফেসবুকে প্রাণহানির হুমকি পাচ্ছেন। মনোজ সাহা, সুরঞ্জনের ফেসবুক ওয়ালে লিখেছেন ‘ তোর বাবা বাবুলকে যেমন করে মারা হয়েছে তেমন করে তোকেও মারা হবে।’ ‘তুই একবার ক্লাসে ঢোক’ বলে হুমকি দিয়েছেন জয়দীপ ভট্টাচার্য নামে একজন।

যাদবপুরের মাসকম বিভাগের কিছু ছাত্র উপাচার্যের কাছে লিখিতভাবে জানিয়েছে সুরঞ্জনকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বার না করলে তাঁরা ক্লাস করবেন না। অনেকের বলছেন, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের বামপন্থী ছাত্ররা কোনভাবেই বিরুদ্ধ মতকে বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে ঢুকতে দেয় না।
এ প্রসঙ্গে সুরঞ্জনের বক্তব্য, ‘শুধু বিশ্ববিদ্যালয় নয়, সারা পৃথিবী থেকেই বিরুদ্ধ মতকে ওরা সরিয়ে দিতে চায়। আমাদের লড়াই এই স্বৈরাচারী মতাদর্শের সঙ্গে।’ সঙ্গে তিনি এও বলেন যে তাঁকে মারার হুমকি দিলেও তিনি ওদের ভয় পান না।

আরও পড়ুন – ছাগল হইতে সাবধান

শেখর ভারতীয় নামে এক ফেসবুক ব্যবহারকারী তাঁর একটি পোস্টে তথ্য দিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন, ‘কানহাইয়া কুমারের মতো বাম যুব নেতা এবং সুজন চক্রবর্তীরা যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে বক্তব্য রাখতে পারেন। কিন্তু বিরোধী মতাদর্শের কেউ এলেই বিক্ষোভের নামে মারধোর করা হয়। এটা কেন হবে? যারা সারাজীবন বাকস্বাধীনতার কথা বলে গেল তারা অন্য মতকে মেরে ফেলতে চাইবে কেন? যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় তো আর দেশের বাইরে নয়!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here