শিশু মনে থাবা বসাচ্ছে ভার্চুয়াল জগতের চরিত্ররা,বাড়ছে বিপদ

0
affect-of-virtual-life-on-a-child

Last Updated on

নিউক্লিয়ার ফ্যামিলি | ফ্ল্যাটে বেড়ে ওঠা শৈশবগুলির বন্ধু তাই ভার্চুয়াল লাইফের কার্টুন চরিত্রগুলিই | তার মধ্যে প্রবল ব্যস্ত বাবা -মা | বাচ্চাকে দেওয়ার মত দামী খেলনা,জামাকাপড় ছাড়া আর তেমন কিছু দেওয়ার নেই শিশুদের | বদলে যাওয়া চারপাশে তাই নতুন নতুন সামাজিক ব্যাধি মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে | কখনো তা ব্লু-হোয়েলের বেশে কখনো পাবজি আবার কখনো বা ডোরেমন,সিঞ্চনের বেশে | শিশু মনে এদের ব্যপক প্রভাবের ফলে জীবনেও ঘটে যাচ্ছে নানা অঘটন | ওই ভার্চুয়াল দুনিয়াকে সত্যি ভাবা শিশুদের ভুলের মাসুল কখনো বা দিতে হচ্ছে জীবন দিয়েও |

আরও পড়ুন – ক্রিকেটের ভগবান ও কয়েকটি এক টাকার কয়েনের গল্প

টিভিতে দেখা কার্টুনের চরিত্রের নকল করতে গিয়ে তেমনই বেঘোরে প্রাণ হারাল পঞ্চম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্র । স্কুল থেকে বাড়ি ফিরে বাথরুমে গিয়ে বেল্টের ফাঁস গলায় বেঁধে সোমবার মৃত্যু হয় হাওড়ার বাসিন্দা বছর দশেকের ওই ছাত্রের । পরিবার সুত্রে জানা যায়, হাওড়া ময়দানের একটি বেসরকারি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের পঞ্চম শ্রেনীর ছাত্র ছিল সে । ছোটবেলা থেকেই টিভিতে কার্টুন চ্যানেলর চরিত্রদের নকল করত ওই নাবালক । কখনও ডোরেমনকে নকল করে লাফিয়ে উঠত, তো কখনও অন্য কিছুকে নকল করে খাট থেকে লাফিয়ে মাটিয়ে নামত । পরিবারের নিষেধ অমান্য করেই চলত নানা রকম দুঃসাধ্য জিনিস করা চেষ্টা |

ঘটনার দিন স্কুল থেকে বৈকন্ঠ চ্যাটার্জি লেনের বাড়িতে ফিরে বাথরুমে যায় সে । দীর্ঘক্ষণ বাথরুম থেকে বেরিয়ে না আসায় পরিবারের লোকেদের সন্দেহ হয় । বারে বারে তাকে ডেকেও সাড়া না মেলায় দরজা ভেঙে দেখা যায় গলায় বেল্ট আটকে শাওয়ারে ঝুলছে ওই বালক । তাকে তড়িঘড়ি হাওড়া জেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত বলে ঘোষণা করেন ।

আরও পড়ুন – শ্লোগান সাহিত্য বাংলা সাহিত্যের পরম্পরা নয়

না হাওড়ার এই ছেলেটি প্রথম নয় | এটি একটি উদাহরণ মাত্র | এরকম এর আগেও ব্লু-হোয়েল নামে একটি বিপজ্জনক খেলায় মেতে উঠেছিল গোটা বিশ্ব | ঠিক এখনকার পাবজির মতই |বিপজ্জনক নানা নির্দেশ পালন করে অজান্তেই যখন নিজের ক্ষতি করে ফেলত সেই খেলোয়াড় ততক্ষণে অনেক দেরি হয় যেত | তাই ব্লুহোয়েল অন্যান্য দেশের মত থাবা বসিয়েছিল ভারতের নানা রাজ্যে | বাদ পড়েনি বাংলাও | এমনকি স্কুল গুলিতেও চালু হয়েছিল বিশেষ নজরদারি | মনোবিদদের মতে শিশুদের মনে নিঃসঙ্গতার কারণেই এই ধরনের ভার্চুয়াল গেমের প্রতি বা চরিত্রগুলিকে তারা বেসি করে আঁকড়ে ধরছে | পরিবারের তাই বড় ভূমিকা অবশ্যই থাকে বলে মনে করছেন তারা | বাবা-মায়ের সঙ্গে মানসিক দূরত্বই তাদের ঠেলে দিচ্ছে অজানা দুনিয়ার কাছে, মত সমাজবিদদেরও |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here