রাণাঘাটে বিজেপি কর্মীর খুনে চুপ কেন প্রশাসন ? প্রশ্ন বিজেপি নেতৃত্বের

0

Last Updated on

নদীয়া: রাণাঘাট লোকসভা কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থী জগন্নাথ সরকারের জয়ের পর থেকেই উত্তপ্ত গোটা এলাকা| শুক্রবার বিজেপি কর্মীর মৃত্যুকে ঘিরে যা চরম আকার নেয়| রাতে নদিয়ার চাকদহ পৌরসভার ১৯ নং ওয়ার্ডের পবন গৌড় পাড়ায় সন্তু ঘোষ নামে বিজেপি কর্মীকে দুষ্কৃতীরা বাড়ি থেকে ফোনে ডেকে নিয়ে গিয়ে পাই বাড়ির কাছাকাছি, প্রায় ৪০০ মিটার দূরে একটি ফাঁকা জমিতে গলায় গুলি করে| গুলির শব্দ পেয়ে আশেপাশের লোকজন দৌড়ে আসে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সন্তু ঘোষকে চাকদহ স্টেট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করে তাঁকে| শুক্রবার ওই কর্মী খুন হওয়ার পরই বিজেপি কর্মীরা থানার সামনে গিয়ে বিক্ষোভ দেখান|

শনিবার সকালে পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী রেল ও জাতীয় সড়ক অবরোধ করেন বিজেপি কর্মী ও সমর্থকেরা| তাঁদের দাবি, তৃণমূলের দুষ্কৃতী ও পুলিশের মজতে ওই বিজেপি কর্মীকে খুন করা হয়েছে| যতক্ষণ পর্যন্ত অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হবে,ততক্ষণ তাঁদের এই বিক্ষোভ কর্মসূচি চলতে থাকবে| এক বিজেপি কর্মীর কথায়, আগেরদিনই তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা খুনের হুমকি প্রকাশ্যে দিয়ে যান| তবে প্রশ্ন সব জেনে শুনে কেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পুলিশ এদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করলেন না? শোকাহত পরিবারের পড়শিরা জানান এইবারই প্রথম লোকসভা ভোটে ওই বিজেপি কর্মী ভোট দেন| সন্তু ঘোষকে তাঁদের কর্মী বলে দাবি করলেও পরিবারের লোকেরা শাসকদলের ভয়ে কোন রাজনৈতিক দলে সন্তু যুক্ত ছিলেন না বলে দাবি করেন| বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের অভিযোগ, চাকদহের দুষ্কৃতীরাজকে নিজেদের স্বার্থে টিকিয়ে রেখেছে তৃণমূল| পুলিশকে উদ্যোগ নিয়ে সেই দুষ্কৃতী রাজ অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে বলে দাবি করেন তাঁরা|

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here