শাসক দল থেকে মুখ ফিরিয়েছে রাজ্য সরকারি কর্মীরা,বলছে পোস্টাল ব্যালটের গণনা

0

Last Updated on

সপ্তদশ লোকসভা ভোটের ফলাফল বেরোনোর ২৪ ঘন্টার মধ্যেই বঙ্গ রাজনীতিতে নানা মোড়| মুকুল পুত্র শুভ্রাংশুকে দল থেকে ৬ বছরের জন্য বহিষ্কার করার কথা ঘোষণা করলেন তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়| নিয়ম-শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে অভিযুক্ত বিজপুরের বিধায়ক শুভ্রাংশুকে যখন কাঁটা-ছেঁড়া করছিলেন পার্থবাবু, তখন রাইজিং বেঙ্গলের হাতে এসে পৌছেঁ গিয়েছে পোস্টাল ব্যালটের নিরীখে রাজ্যের লোকসভা কেন্দ্রগুলির প্রাপ্ত ভোটের পরিসংখ্যান| সাধারণভাবে নির্বাচনের কাজে নিযুক্ত সরকারি কর্মীদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হয়ে থাকে এই পোস্টাল ব্যালট| সেখানে ভোট দেওয়ার বিস্তর কায়দা-কানুন| বহু সরকারি কর্মচারীই নাকি এই ব্যালট পাননি এই লোকসভা ভোটে| যাক, সে প্রসঙ্গে এড়িয়ে বরং কেন্দ্রগুলির দিকে তাকিয়ে বুঝে নেওয়া যাক কে কোথায় দাঁড়িয়ে| সার্বিক ভোটের শতাংশের হিসেবে বিজেপি শাসক তৃণমূলকে পিছনে ফেলে এগিয়ে রয়েছে এনেকটাই| তাদের প্রাপ্ত ভোট ৬৪.৩৪শতাংশ| শাসক তৃণমূলের প্রাপ্ত ভোট ২৩.৫০শতাংশ| বামফ্রন্ট পেয়েছে ৬.৯৭ ও কংগ্রেস ৫.১৭ শতাংশ ভোট পেয়েছে| এখন প্রশ্ন, রাজ্যে সব কেন্দ্র মিলিয়ে যেখানে বুথগুলিতে বিজেপির প্রাপ্ত ভোট ৪০ শতাংশ, তবে কোন সমীকরণে পোস্টাল ব্যালটে এই প্রতিফলন? কেন্দ্র ও রাজ্য কর্মচারীদের প্রায় ৪১ শতাংশের ডিএ-এর ফারাক নিয়ে তাদের মনে জমে থাকা অসন্তোষকেই এর পিছনে দায়ী করছে ওয়াকিবহাল মহল| রাজ্য সরকারি কর্মচারীরা ২০০৯-এর পর পে কমিশন অনুযায়ী বর্ধিত ডিএ পাননি| যদিও ৪২ মাস আগে রাজ্য সরকার একটি কমিটি গঠন করে বেতন পরিকাঠামো পরিবর্ধন করার জন্য | এতগুলো দিন অতিক্রান্ত হলেও সেই কমিশনের কোন রিপোর্ট আজ অবধি জমা পড়েনি বলে খবর| তাতে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের ক্ষোভ বৃদ্ধি পেয়েছে| বিশেষ করে অন্যান্য রাজ্যের প্রাথমিক স্কুল শিক্ষকেরা এনসিইআরটির গাইডলাইন মেনে যে বেতন কাঠামোতে পড়েন সেই নির্দেশিত গাইডলাইনের অনুযায়ী বেতন দেয়না এই রাজ্যের তৃণমূল শাসিত সরকার| তা নিয়ে আন্দোলনের মুখেও পড়তে হয় রাজ্য সরকারকে| অভিযোগ, সেই আন্দোলনের কর্ণধারদের চিহ্ণিত করে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক বদলির ব্যবস্থাও করা হয়| অথচ এই সরকারি কর্মচারীরাই সরকারের মুখ হিসবে পরিচিত| তাদেরকে দিয়েই নানা সরকারি প্রকল্পের তৃণমূলস্তরে কাজ করিয়ে থাকে রাজ্য সরকার| তাদের ন্যায্য পাওনা না পাওয়ার যন্ত্রণাকে ছাপিয়েও মুখ্যমন্ত্রীর বিভিন্ন সময়ে সরকারি কর্মচারীদের প্রতি তির্যক মন্ত্বব্যের প্রতিফলন হয়েছে পোস্টাল ব্যালটে, মানছেন খোদ শাসকের শিক্ষক সংগঠনের নেতারাও| অন্যদিকে যে পাহাড়ে “শান্তি ফিরে এসেছে,পাহাড় থেকে জঙ্গলমহল হাসছে” বলে মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একাধিকবার দাবি, সেই দার্জিলিঙের কর্মীরাও কিন্তু উল্টো সুর গেয়েছেন| ৭১৪৫টি ভোটের মধ্যে সেখানে বিজেপি একাই পেয়েছে ৫৪১০টি ভোট| আর তৃণমূলের অঙ্কটা মাত্র ৮৩১| রাজ্যব্যাপী ভোট শতাংশের বিচারে তৃণমূল ক্ষতির মুখে না পড়লেও আভ্যন্তরীণ এই বিষয়গুলিতে যে নজর দেওয়া প্রয়োজন তার ইঙ্গিত দিচ্ছে এই ফলাফল| তাই সাধু সাবধান|

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here