সরকারি বাংলো ছেড়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের

0

Last Updated on

শারীরীক অসুস্থতার কারণে তিনি এবারে মন্ত্রীত্ব অস্বীকার করেছেন | এবার ছেড়ে দিলেন তাঁর সরকারি নিবাসটিও | শনিবার ঘন্টা পাঁচেক আগে ট্যুইট করে সেকথা জানান প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ | লিখলেন, আমি ৮নং সফদরজং ছেড়ে এসেছি| তাই সেই ঠিকানা বা ফোন নম্বরে আর পাওয়া যাবেনা আমাকে |
এরপরই সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর অনুগামীরা আবেগতাড়িত হয়ে নানা পোস্ট করতে থাকেন | কেউ বলেন,আপনার অভাব বোধ করব | কেউ লেখেন, বীর সেনানি সুষমাজি | কেউ বা তাঁকে সমাজের নিঃস্বার্থ সেবায় কুর্ণিশ জানান | আবার কেউ সরকারি বাংলো ছেড়ে দিয়ে তিনি দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন বলেও মন্তব্য করেন |
তবে ভারতে মত দেসে কোন কিছুকে রাজনীতিকরণ করা হবে না তা হতে পারেনা | এর মধ্যেও কেউ কেউ কোন মহানতা খুঁজে পাননি | তাদের মধ্যে কারো কারো বক্তব্য, এটি একটি সরকারি নিয়ম | তাই তাঁকে ধন্যবাদ জ্ঞাপনের অর্থ চাটুকারিতা | তা নিয়েও বিতর্ক তৈরি হয় | পাল্টা উত্তর দিতেও ছাড়েননি সুষমা স্বরাজের অনুগামীরা |

বিজেপি সরকার দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পরপরই প্রাক্তন সাসংদ যারা শেষবার জিততে পারেননি ,তাঁদেরকে অনুরোধ করেছিলেন তাঁদের জন্য দেওয়া সরকারি বাংলো ছেড়ে দিতে | সংখ্যাটা নেহাত কম নয় ২৬৭ জনের তালিকা প্রাথমিকভাবে পেশ করা হয়েছিল | তাতে অনেকেই সেসময় বিজেপির সমালোচনায় সরব হয়েছিলেন | অন্যদিকে একই ভাবে বিধানসভায় ভরাডুবির পর বিজেপির ৭৪ জন বিধায়ককে তাঁদের অধিকার করা বাংলোকে ছাড়তে অনুরোধ করে সেখানকার কংগ্রেস সরকার | এই নিয়ে চরমে পৌঁছয় রাজনৈতিক তরজা |

সংসদে যে বিলগুলি পেশ করতে চলেছে দ্বিতীয় মোদি সরকার,তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য দি পাবলিকস প্রেমিসেস অ্যামেন্ডমেন্ড বিল | এই বিলে মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পরও যে সকল সরকারি কর্মচারীরা অন্যায়ভাবে তাদের সরকারি বাংলো দখলে রেখেছেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানের সুপারিশ রয়েছে এই বিলে বলে সূত্রের খবর | মেয়াদের পর পাঁচ মাস অবধি থাকতে পারে সেখানে | তার বেশি থাকলে ১০লাখ টাকা অবধি জরিমানার কথা সুপারিশ করা হয়েছে এই বিলে |
প্রসঙ্গত বছর দুয়েক আগে উত্তরপ্রদেশের মুখথ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব সরকারি বাংলোকে ক্ষমতাচ্যুত হোয়ার পরও দুবছর রেখে দেন নিজের দখলে,তা নিয়ে সমালোচিত হন | বিএসপি চিফ মায়াবতী তাঁর রাজনৈতিক গুরু কাশীরামের নামে মেমোরিয়াল করেছিলেন তাঁর সরকারি বাংলোটিকে,এই নিয়েও তাঁকে বিতর্কের মুখে পড়তে হয় | কংগ্রেস ও বিজেপির সঙ্গে বাংলো ইস্যু নিয়ে দেশের সর্বোচ্চ আদালতে মামলা অবধি গড়ায় মুর্শিদাবাদের কংগ্রেস সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরি বাংলো খালি করা নিয়ে | ২০১৬ সালে সেই রায়ে অবশ্য তাঁর পদমর্যাদার সহ্গে সামঞ্জস্য রেখে বাংলো পরিবর্তন করতে বাধ্য হন বর্তমানে কংগ্রেসের সংসদের মুখ অধীর চৌধুরি |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here