বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়োর মোবাইলে “জয় হিন্দ ” স্লোগান তৃণমূল সমর্থকের

0

Last Updated on

মোবাইলে ভেসে উঠল জয় হিন্দ,মমতা ব্যানার্জি জিন্দাবাদ,বাংলা জিন্দাবাদ | প্রাপক আর কেউ নন, আসানসোলের বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়ো | বলার অপেক্ষা রাখেনা যিনি প্রেরক তিনি কোন দলের সমর্থক | তাঁর উত্তরে বাবুল যা লিখেছিলেন তা হল, ” জয় হিন্দ..জয় বাংলা…জয় বাঙালি..জয় শ্রী রাম..জয় ভগবান..জয় হনুমান..জয় মান-সম্মান-দুটোই খুব ইম্পর্ট্যান্ট জিনিস-সেটা দয়া করে মমতা ব্যানার্জিকে মনে করিয়ে দিও ভাইজান-জয় শ্রী রাম | এরপরই বাবুল সুপ্রিয়ে তাঁর ফেসবুক প্রোফাইলের ওয়ালে একটি পোস্ট করেন | তাতে তিনি লেখেন, ” যারা আমাকে মোবাইলে বা ফেসবুকে জয় হিন্দ জয় বাংলা জানাচ্ছেন,তাদের বলি ধন্যবাদ ও Same to you! হিন্দ ও বাংলা তো আমার আপনার সবার ! আপনাদের জন্য রইল অনেক ভালোবাসা আর দিদিমণিকে জানাই ‘জয় শ্রী রাম’ | ” জয় শ্রী রাম নিয়ে রাজনৈতিক তরজা এবার রাস্তা ছাড়িয়ে ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ার আনাচে-কানাচে | এই স্লোগানের জন্য গ্রেফতার হওয়ার মত ঘটনার স্মৃতি টাটকা থাকতেই নতুন বিতর্ক দানা বাঁধল একে ঘিরে | বাবুল সুপ্রিয়োর অভিযোগ, তাঁর ব্যাক্তিগত নম্বরকে ইচ্ছে করে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দিয়ে সেখানে তৃণমূল সুপ্রিমোর নেতৃত্বে জয় হিন্দ,জয় বাংলার মত স্লোগান লিখে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন তিনি স্বয়ং | যদিও তিনি এটিকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে গ্রহণও করেছেন| মোবাইলে পাঠানো ম্যাসেজের শেষে মান-সম্মানের যে ইঙ্গিত তিনি করেছেন তা অত্যন্ত তাতপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে| নৈহাটিতে তৃণমূল সুপ্রিমোর বিজেপি সমর্থদের প্রতি ভাষা ব্যবহার অত্যন্ত কুরুচিকর বলে নিন্দার ঝড় উঠেছিল সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে | এই ধরনের কথা যে যথেষ্ট অস্বস্তিতে ফেলে দিয়েছিল তাঁকেও, তা সাংবাদিকদের কাছে যে সাফাই দিচ্ছিলেন, তা বেশ পরিষ্কার ওই ভিডিও ফুটেজটিতে | লোকসভা ভোটের পরবর্তী সময়ের রাজনৈতিক অস্থিরতা যে তাঁকে প্রভাবিত করছে তা বেশ কিছু বেফাঁস মন্তব্যতে বেশ প্রকট বলে মনে করছেন রাজনীতিজ্ঞরা | এমনকি তৃণমূলেরই প্রাক্তন সাংসদ তো এর জন্য মমতা ব্যানার্জির পারিষদদের দোষারোপ করে নিজের ফেসবুক ওয়ালে একটি পোস্টও করেন | লোকসভা ভোটের ফলাফলের পর থেকে টালমাটাল শাসক শিবিরের অবিন্যস্ততা ধরা দিচ্ছে তৃণমূল নেত্রীর চলন-বলনেও| নৈহাটিতে দাঁড়িয়ে বিজেপি সমর্থকদের প্রতি তাঁর মন্তব্য নিয়ে ঝড় উঠেছে নানা আলোচনায়| এতে তাঁর ভাবমূর্তিও খানিকটা হলেও যে নষ্ট হয়ছে তা স্বীকার করবে তাঁর অতি পরম ভক্তও| এরই মধ্যে তাঁর পাল্টা চাল জয় হিন্দ ও জয় বাংলা স্লোগানকে বিজেপি নেতাদের কাছে পৌঁছে দেওয়া| তাতেও খুব লাভ হলনা বলেই মনে করছেন রাজনীতিজ্ঞরা| তাঁদের মতে , দুর্গাপুর-বর্ধমান ও আসানসোলের সাংসদেরা যে ভাবে এই স্লোগানকে সর্বান্তকরণে সমর্থন জানিয়েছেন তাতে এই চালেও খানিকটা পিছিয়ে রইলেন তৃণমূল নেতৃত্ব | বরং প্রথম থেকেই এই স্লোগানকে ঘিরে যে সক্রিয়তা তিনি দেখিয়েছেন, তা না দেখালে রাজনৈতিক তরজা বা তাঁর ভাবমূর্তি অক্ষুণ্ণ থাকতো বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহল |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here