সিন্ধে হিন্দু মেয়েদের ধর্মান্তকরণের অভিযোগ ধর্মগুরু মিঠো মিঞার নির্দেশে

0

Last Updated on

মিঞা মিঠো | প্রকৃত নাম মিঞা আব্দুল হক | লম্বা ধুসর দাড়ি দীর্ঘ চেহারার এই শিরিন এখন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের ‌শিরোনামে | সম্প্রতি সিন্ধ প্রদেশে হওয়া হিন্দু স্কুল ও হিন্দু মন্দিরের উপর ধর্মীয় আঘাত হানার যে ঘটনা নিয়ে বিতর্ক, তা নাকি হয়েছে এই মিঞারই অঙ্গুলিহেলনেই | ঘোটকিতে সেদিন কেন দুই জনগোষ্ঠীর মধ্যে সংঘাত, সংঘর্ষ হয়েছিল ? উত্তাল হয়ে উঠেছিল সিন্ধের রাস্তা ? সত্যিটা সামনে এনেছেন বহু পাকিস্তানি যুবক-যুবতীই | সোশ্যাল মিডিয়ায় পর্দা ফাঁস হয়েছে মিঞার দলবলের কুকীর্তি | জানা গিয়েছে, যে হিন্দু শিক্ষককে ইসলামের নামে কুকথা বলার মিথ্যার অভিযোগ এই তান্ডব চালানো হয়েছিল, তিনি ওই মিঞার অপহরণ করা এক হিন্দু মেয়েকে নিরাপদ আশ্রয় দিয়েছিলেন | তাঁর খোঁজে এসেই ওই কান্ড করে মিঞার দলবল | শুধু মিঞা নয়, মিঞার কথায় সিন্ধ তথা পাকিস্তান পুলিশ ওই শিক্ষককে তুলে নিয়ে যায়| দীর্ঘক্ষণ জেরা করে | যখন সিন্ধের মানুষই ওই শিক্ষকের জন্য পথে নামে তখন পাক পুলিশ ওই শিক্ষককে ছেড়ে দিতে বাধ্য হন |

ওইরকম অপহরণ করাই কাজ মিঞার | যে সকল হিন্দু ঘরের মেয়েরা মুসলিম ছেলেদের সঙ্গে সংসার করতে চান তাদেরকে নিরাপদে আশ্রয় দেওয়াই কাজ পাকিস্তানের এই মৌলবাদী ধর্মীয় ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব মিঠো মিঞার | ব্রিটিশ রাজের পর থেকে সিন্ধে সংখ্যালঘু ছিল মুসলিমরাই | সেখানে হিন্দুদের সংখ্যা বেশি থাকলেও মিঞার মত লোকজনের জন্য বর্তমানের চিত্রটা পাল্টে গিয়েছে বলে দাবি করেন ওই প্রদেশের হিন্দুরা |

দাহারকি নিবাসী এই মুসলিম ধর্মগুরুর সঙ্গে ওঠাবসা সকলের | কখনো তাকে দেখা যায় পাক সেনাপ্রধানের সঙ্গে হাত মেলাতে | কখনও বা পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান | ঘোটকি থেকে ওই প্রদেশের সরকার পিপিপি-র হয়ে নির্বাচনে লড়েছিলেন এই ধর্মগুরু | তবে হিন্দু মেয়েদের অপহরণ করে তাদেরকে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করানোর মাস্টারমাইন্ড এই মিঞা কিন্তু তা বলছেন না | বলছেন, যারা ইসলামকে ভালোবাসে তাদেরকে তার বাড়ি দাহেরকিতে নিয়ে গিয়ে রাখা হয় | তারপর তার ইচ্ছার কথা জানানো হয় তার পরিবারকে | তার পরিবার যদি চান তখন এসে তাকে বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে যেতে পারেন | কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই পরিবারের লোক অভিমানে মেয়েটিকে নিতে আসেনা | তখন তিনি তাদেরকে ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত করেন |

না মিঞার এই কথা সমর্থন করেন না সেখানকার প্রকৃত সিন্ধবাসীরা | তারা বলেন,মিঞার মত জেহাদীর জন্য সিন্ধ এত অশান্ত |পরিসংখ্যানের নিরীখে প্রতি বছর ১৭ শতাংশ হিন্দু মেয়ে ইসলামে ধর্মান্তরিত হয় এই মিঞার হাত ধরেই | এত অপরাধের পরও কেন পাকিস্তান এই মিঞাকে ছেড়ে রেখেছে, তা নিয়ে প্রশ্ন করছেন খোদ পাকিস্তানের মুসলিমেরা | নতুন প্রজন্মের সেই উত্তর নেই পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরানের কাছে |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here