বারবার ক্যম্পাসে রাজনৈতিক তাণ্ডবের দায় কেন নেবে যাদবপুরের সাধারণ পড়ুয়ারা

0
question of a common student of jadavpur university

Last Updated on

রাইজিং বেঙ্গল ডেস্ক : যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে হওয়া ঘটনাটি বৃহস্পতিবার থেকে সারা দেশের মেইনস্ট্রিম মিডিয়ার বহু চর্চিত বিষয় | ঘোষিত কর্মসূচি এবিভিপি ছাত্র সংগঠনের | হাজির থাকবেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা রাজ্যের সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় | সে কথা আগেই জানা ছিল | বিশ্ববিদ্যালয়ের বাম-ছাত্রদের কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর প্রতি আচরণও ছিল পূর্ব পরিকল্পিত | আমরা বলছি না, বলছে কিছু যাদবপুর ছাত্রেরই ফেসবুক পোস্ট | রাজ্যপাল রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধান,সেখানে তিনি যাওয়া এবং পরপর দুদিন দুটি রাজ্যবিরোধী অবস্থানের বার্তা দেওয়া এগুলি নিয়ে বাংলা রাজনীতি সরগরম | রাজ্যপাল এই ঘটনায় সরাসরি আঙুল তুলেছেন রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলার উপরেই | ছয় ঘন্টা ধরে আটকে রেখে শারীরিক হেনস্থার পরও কেন রাজ্য পুলিশের কেউ সেখান থেকে মন্ত্রীকে উদ্ধার করলেন না | উঠেছে সেই প্রশ্নও

আরও পড়ুন – আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষ ঈদ উদযাপনের অনুষ্ঠানে ‘না ‘ কাশ্মীরি পড়ুয়াদের

ঘটনার পর কেটে গিয়েছে ২৪ঘন্টা প্রায় | উত্তেজনা স্তিমিত হয়নি | বরং ক্যাম্পাসের গন্ডীর বাইরেও ছড়িয়ে পড়েছে আগুন | যে বাম ছাত্র-ছাত্রীদের হাতে নিগৃহীত হওয়ার কথা উঠছে, সেই বাম ছাত্র সংগঠনের পড়ুয়ারা এখনও মনে করছেন তারা যা করেছেন তার মধ্যে কোন সমস্যা নেই | আসল সমস্যা তৈরি করে এবিভিপি | না তাদের গলাতে কিন্তু শোনা যায়নি কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে উত্তেজিত মুহূর্তে শারীরিক নিগ্রহের জন্য কোন আক্ষেপ | বরং পাল্টা বিজেপির বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক হয়েছে তাদের ভাষা |

এগুলি সবই রাজনৈতিক কচকচানি | এগুলিকে ছেড়ে দিলে যাদবপুরের মত দেশের প্রথম সারির বিশ্ববিদ্যালয়ের তো আরও বিভাগ রয়েছে | জানা গিয়েছে,বৃহস্পতিবার ক্যাম্পাসের ওই ঘটনায় যে সকল পড়ুয়ারা ছিলেন তারা সংখ্যাগরিষ্ঠ কলা বিভাগের পড়ুয়া| কিন্তু মুষ্টিমেয় ওই কজন ছাড়া বাকী পড়ু‌য়ারা ,তাদের তো কোন ভূমিকা নেই | তবে কেন বারবার দেশের মধ্যে জেনেইউএর পর পড়ুয়াদের বিতর্কিত কাজের জন্য শিরোনামে উঠে আসে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম? আবারও এই প্রশ্ন, রাইজিং বেঙ্গলের না | প্রশ্ন করেছেন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সাধারণ পড়ুয়ারা | যারা ইউনিয়ন রুমকেই জীবন গড়ার সিঁড়ি ভাবেননা | রাস্তায় দাঁড়িয়ে অসভ্যতা করেন না | কোন মন্ত্রীর চুল টেনে ধরেন না | স্যানিটারি ন্যাপকিন গাছে টানান না ,হোক কলরব করেন না , সহ উপাচার্যকে হাসপাতালে যাওয়ার মত বা ইস্তফা দেওয়ার মত পরিস্থিতি তৈরি করেননা |সেই সকল সাধারণ পড়ুয়াদের কথা কি একবারও ভাবা উচিত নয় ওই বাম পড়ুয়াদের ? তাদের দায় দেশে-বিদেশে সেমিনারে যাওয়া ছাত্র-ছাত্রীরা কেন নিতে যাবে ইঞ্জিনিয়ারিং বা অন্যান্য বিষয়ে পাঠরত যাদবপুরের ছাত্র-ছাত্রীরা ? চোখে অনেক স্বপ্ন নিয়ে রাস্তায় নামতে যারা এই সকল পড়ুয়াদের রাজনীতির ঘুঁটি বানাচ্ছেন,সেই সমস্ত পোড় খাওয়া বাম নেতারা ভাবুন | কমরেড সামনের নির্বাচনে আপনাদের সমস্ত কমিটেড ভোটারদের ভোটটাও পাবেন তো ?

আরও পড়ুন – খেলার মাঠে চোট পেয়ে মৃত্যু প্রতিশ্রুতিবান ফুটবলারের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here