জুনিয়র ডাক্তারদের নিগ্রহের পর বারবার সরকারি নিস্পৃহতার পিছনেও কি সেই সংখ্যালঘু ভোটব্যাঙ্ক !

0

Last Updated on

রোগী মৃত্যুকে ঘিরে আরও একবার ধুন্ধুমার সরকারি হাসপাতাল চত্বর | শিয়ালদহ লাগোয়া এনআরএস হাসপাতালে ট্যাংরার এক রোগীর মৃত্যুকে ঘিরে উত্তেজিত জনতা চড়াও হয় কর্তব্যরত জুনিয়র ডাক্তারদের উপর | আর তাতেই আশঙ্কাজনক অবস্থায় ওই জুনিয়র ডাক্তারকে আইসিসিইউতে ভর্তি করতে হয় | এরপরই এই ঘটনার প্রতিবাদে অবস্থানে বসেন জুনিয়র ডাক্তারেরা| নিরাপত্তার দাবিতে সরব হয়ে হাসপাতালের মূল ফটকে তালা দিয়ে দেন তাঁরা | সপ্তাহের দ্বিতীয় কর্মব্যস্ত দিনে কার্যত অচল হয়ে পড়ে ব্যস্ত সরকারি হাসপাতলের ইমার্জেন্সি বিভাগ | তাতেই ধৈর্যের বাঁধ ভাঙে রোগীর পরিজনদের| একসময় গেটের তালা ভেঙে ঢুকে পড়ে হাসপাতাল চত্বরে | পুলিশি উপস্থিতিতে বড় কোন দুর্ঘটনা না ঘটলেও অবস্থানেই রয়েছেন জুনিয়র ডাক্তারেরা| জুনিয়র বা সিনিয়র, ডাক্তার নিগ্রহ নতুন কিছু নয় খাস কলকাতাতেই | ২০১৬সালে শহরের আর এক ব্যস্ত হাসপাতাল আর জি কর হাসপাতালে রাতে ইমার্জেন্সিতে কর্তব্যরত জুনিয়র ডাক্তারদের উপর চড়াও হওয়া রোগীর আত্মীয়-পরিজনেরা | তখনও দীর্ঘসময় অবস্থান ও নিজেদের নিরাপত্তার দাবিতে সরব হয়েছিলেন তাঁরা| বন্ধ করে দিয়েছিলেন সমস্ত পরিষেবা | সময় গড়িয়েছে ডাক্তার নিগ্রহের ছবিটা একই রয়েছে| প্রতিটি ক্ষেত্রেই পুলিশের নিষ্ক্রিয়তা নিয়ে সোচ্চার হয়েছেন ডাক্তারেরা | সোমবারের ঘটনাতেও এন আরএসের জুনিয়র ডাক্তারদের বক্তব্য, পুলিশের সামনে পরিজনেরা ইঁট দিয়ে তাঁদের সহকর্মীর মাথা ফাটালেও নীরব দর্শক হয়েছিলেন পুলিশ আধিকারিকেরা | আরজি কর বা এনআরএসের মত ঘটনাগুলি অধিকাংশ জেলা হাসপাতাগুলির জন্যও ততটাই সত্যি| হেমতাবাদে কয়েকদিন আগেই চিকিতসায় গাফিলতির অভিযোগে শারীরীক নিগ্রহ করা হয় কর্তব্যরত ডাক্তারকে| রোগী কল্যাণ সমিতির সভাপতি ডঃ শান্তনু সেন নিজেও ডাক্তার ও শাসক দলের সাংসদও বটে | তাঁর ভূমিকাও খুব সন্তোয়জনক নয় বলছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রবীণ চিকিতসক | পরিষেবা না পাওয়ার জন্য রোগীরা সবচেয়ে আগে যাদেরকে নিশানা করেন সেই জুনিয়র ডাক্তারদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত কেন করতে পারছে না সরকার,প্রশ্ন উঠছে | প্রশ্ন উঠছে, সরকারি কর্মীকে এহেন শারীরীক হেনস্থার পর কেন জোরালো কোন আইনি পদক্ষেপ করছেন না সরকার? এখানেও কি সেই সংখ্যালঘু ভোটব্যাঙ্ক রাজনীতি! কাকতালীয় হলেও সত্যি যে আরজিকরের ঘটনা বাদ দিলে চিত্তরঞ্জন ন্যাশনাল হাসপাতাল, শিশু মঙ্গল বা এনআরএস হাসপাতালে যে পরিজনদের হাতে জুনিয়র ডাক্তারেরা শহরের বুকে দাঁড়িয়ে হেনস্থার সিকার হয়েছেন তারাও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়েরই প্রতিনিধিত্ব করেন | প্রসঙ্গত এই বছরের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে এই এনআরএস কলেজ ও হাসপাতালের ভাবী ডাক্তারেরা রোগীর পরিবারের হেনস্থা থেকে বাঁচার জন্য দেশের মধ্যে প্রথম তাইকুন্ড ট্রেনিং নিয়েছিল বলে সংবাদ মাধ্যমে খবর |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here