দর্জির আড়ালে অস্ত্র ব্যবসায়ী শওকত মোল্লা পুলিশের জালে

0

Last Updated on

দক্ষিণ ২৪ পরগনা : এলাকায় পরিচিতি দর্জি হিসেবে | জামকাপড় তৈরি করেই দিন গুজরান করত সে | সবাই তাই জানত | মঙ্গলবার পুলিশের জালে অস্ত্র কেনাবেচায় ধরা না পড়লে এলাকাবাসী জানতেনই না যে দর্জির কাজের আড়ালে শওকত মোল্লা আগ্নেয়াস্ত্রের কেনা বেচায় যুক্ত ছিল | যদিও শেষমেশ পুলিশের ফাঁদে পড়ল ওই অস্ত্র ব্যবসায়ী । উদ্ধার হল প্রচুর আগ্নেয়াস্ত্র সহ তাজা কার্তুজ ।

দক্ষিণ ২৪ পরগনার বকুলতলা থানার অন্তর্গত খোলাখালী অঞ্চলের রঘুনাথপুরের বাসিন্দা শওকত মোল্লাকে ধরতে আগেই ফাঁদ পেতে ছিল পুলিশ | কিছুদিন আগে একটি সূত্রে খবর পেয়ে তার বাড়িতে নিস্ফল অভিযান চালায় পুলিশ, শুন্য হাতে ফিরতে হয় তাঁদের । তবে শোকতের গতিবিধি অনেকদিন ধরেই নজরে রাখছিলেন স্থানীয় পুলিশ | মঙ্গলবার রাতে বারুইপুর পুলিশ জেলার আধিকারিকদের কাছে গোপন সূত্রে একটি খবর আসে । খবর পেয়েই তড়িঘড়ি স্পেশাল অপারেশন গ্রূপের ও.সি লক্ষিকান্ত বিশ্বাস ও বকুলতলা থানার ও.সি হাবুল আচার্যের নেতৃত্বে পুলিশের একটি বিশেষ বাহিনী হানা দেয় মহিষমারি এলাকায় । পুলিশের পাতা জালে দ্রুত ধরা পড়ে অভিযুক্ত । অস্ত্রের মাঝারি সম্ভার একটি অটোতে নিয়ে এসে পৌঁছয় শওকত | তখনই পুলিশ ওই অটো সহ আটক করে শওকত মোল্লাকে । অটোর মধ্যে কাপড়ে জড়ানো ছিল সাতটি লং ব্যারেল পাইপ গান , একটি ছোট পাইপ গান ও একটি সেভেন এম.এম পিস্তল । অটোতেই মিলেছে বারো বোরের পনেরো টি কার্তুজ , সেভেন এম .এম পাঁচটি ও এইট এম.এম একটি কার্তুজ ও একটি ম্যাগাজিন ।

বুধবার বারুইপুর পুলিশ জেলার পুলিশ সুপার রশিদ মুনির খান জানান দীর্ঘদিন ধরেই শওকত বাইরে থেকে আগ্নেয়াস্ত্র আমদানি করে বিক্রি করছিল জয়নগর , বকুলতলা সহ বিভিন্ন এলাকায় । তবে প্রাথমিক অনুমান, শওকত একা নয়,এর সঙ্গে যে রয়েছে আরও অনেকেই তা একপ্রকার নিশ্চিত পুলিশ | ভিন রাজ্যেও এর বিস্তার রয়েছে বলেও মনে করা হচ্ছে | কোথা থেকে এই আগ্নেয়াস্ত্র আসত , কোথায় তৈরি হয় বা কোথায় কোথায় কাদের কাছে অস্ত্র তার মাধ্যমে পৌঁছে যেত জানতে ইতিমধ্যেই শওকতকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে । বুধবার শওকতকে আদালতে পেশ করে তদন্তের অগ্রগতির স্বার্থে পুলিশ হেফাজতের আবেদন জানাবে পুলিশের আইনজীবী |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here