নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে বাতিল হল এবারের ‘কলকাতা বিপ ফ্যাস্টিভ্যাল ‘

0

Last Updated on

এবছরের মত বাতিল হল কলকাতা বিফ ফেস্টিভ্যাল | যদিও কলকাতা বিফ ফ্যাস্টিভ্যাল থেকে নাম পরিবর্তন করে তা হয়েছিল কলকাতা বিপ ফেস্টিভ্যাল | দি অ্যাক্সিজেন্টাল নিউজ এজেন্সির পেজে এক ঘন্টা আগে একটি পোস্টের মাধ্যমে উদ্যোক্তারা এই খবর পৌঁছে দিয়েছেন তাঁদের অনুরাগীদের কাছে| গত কয়েকদিন ধরেই এই ফেস্টিভ্যাল নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া উত্তাল | প্রথম থেকেই তাঁদের বিস্তর আপত্তি বিফ থেকে বিপ নামকরণ হওয়া নিয়ে | বিতর্কে যোগ দিয়েছিলেন রাজ্যের প্রগতিশীল মানুষেরাও | নাম বদলের বিরোধীতায় তাঁরাও সরব হন | ২৩শে জুন একটি হোটেলে দুপুর থেকে রাত্রি ১১টা অবধি এই ফেস্টিভ্যাল হওয়ার কথা ছিল | তাদের তৈরি করা পেজটিতে উতসাহী মানুষের সংখ্যা বৃহস্পতিবার দুপুর অবধি পৌঁছেছিল প্রায় ৬৫০০এর ও বেশি | কিন্তু তারপর শুক্রবার ওই ফেস্টিভ্যালে আসা অতিথিদের নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে তা বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন উদ্যোক্তারা | পাশাপাশি এও জানিয়েছেন এই ফেস্টিভ্যালের পিছনে কোন রাজনৈতিক উদ্দেশ্য ছিলনা| আর পাঁচটা খাদ্যমেলার মতই আয়োজন করা হয়েছিল এর | কয়েকদিন ধরেই উদ্যোক্তাদের নানা রকম হুমকি দেওয়া হচ্ছিল ফোনে | তাদের পেজে সেকথা স্পষ্ট ভাবে না বললেও হাবেভাবে বোঝাচ্ছিলেন তাঁরা | কিন্তু এত কিছুর পরও তাদেরকে যারা ফোন করে নৈতিক সমর্থন জানিয়েছিলেন তাদেরকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছেন উদ্যোক্তারা | যারা ইতিমধ্যেই ওই ফেস্টিভ্যালের পাস পকেটে পুড়েছিলেন তার টাকা ফেরত দেওয়া হবে বলেও জানায় উদ্যোক্তারা| এই পোস্টের নীচেই অনুরাগীরা স্বাভাবিকভাবেই প্রবলভাবে সোচ্চার হন গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে | দলীয় ছেড়ে ব্যক্তিগত আক্রমণেও নেমে পড়েছে বেশ কয়েকজন ফেস্টিভ্যাল সিম্প্যাথাইজার|কারা উদ্যোক্তাদের হুমকি দিল তা নিয়ে পরিষ্কারভাবে না বললেও আক্রমণের নিশানা রয়েছে বিজেপির দিকেই | খাদ্যাভ্যাসের সঙ্গে রাজনীতি গুলিয়ে ফেলছে গেরুয়া শিবির | এ নিয়ে এখানে যখন উদারমনস্ক বাঙালিরা গলা ফাটাচ্ছেন, তখন তাদের মতই কিছু মানুষের প্রশ্ন কলকাতা পুলিশের থেকে অনুমতি নেওয়ার পর কীভাবে একটি অনুষ্ঠান শুধু নিরাপত্তার কারণে বন্ধ করে দিতে হল ? তবে কি গেরুয়া শিবিরের বাড় বাড়ন্ত ঠেকাতে অপারগ সরকার ? যদিও এই ইস্যু নিয়ে এখনও মুখ খোলেননি শাসক বা বিজেপি নেতৃত্বের কেউই |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here