বিবাহিত শিক্ষক ইয়াকুবের হাত ধরে ঘর ছাড়ল ভিনধর্মী ছাত্রী

0

Last Updated on

মুর্শিদাবাদ : মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলছেন মেররুকরণের রাজনীতির কথা | বিজেপি হিন্দুত্বের তাস খেলে লোকসভা ভোটের মতই নাকি বিধানসভাও আসন পেতে চাইছে| আর তাই বিভেদের রাজনীতি করছেন শীর্ষ থেকে তৃণমূল স্তরের বিজেপির কর্মীরা | বলছেন তৃণমূলের নেতা-নেত্রীরা| আর নিঃশব্দে নিজেদের ধর্মীয় শিকড়কে বাংলার মাটিতে প্রবেশ করাচ্ছেন যে মানুষেরা, তাদেরকে কে কিছু বলবে শাসক দলের দন্ডমুন্ডরা | চারিপাশে পালাবদলের অস্থিরতার সঙ্গেই নতুন এক সংকটে মুর্শিদাবাদের জেমো এন. এন হাই স্কুলের শিক্ষক ও পড়ুয়ারা| খবর, মে মাসের ২৩ তারিখে সকালবেলা এই স্কুলের শিক্ষক ইয়াকুব হোসেন ঐ স্কুলেরই প্রাক্তন এক ছাত্রীকে নিয়ে পালিয়ে যায় । ছাত্রীটি তিনবছর আগে ওই স্কুল থেকেই উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয় | বর্তমানে রসড়া বি.এড কলেজে পাঠরত সেই ছাত্রীর সঙ্গে তখন থেকেই সম্পর্ক ছিল কিনা তা নিয়ে সন্দেহ জাগলেও, বিবাহিত শিক্ষক ইয়াকুব কিভাবে একাজ করলেন তা শুনে হতবাক স্কুলের অভিভাবক সহ স্থানীয় মানুষেরা | অভিযুক্ত শিক্ষকের বাড়ি বীরভুম জেলার ইলাম বাজার থানার ঘুরিসা গ্রামে । এই স্কুলে দর্শনের শিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন তিনি | দীর্ঘ গরমের ছুটির পর ,সোমবার স্কুল খোলার পর ইয়াকুবের স্ত্রী তাঁর শিশুকন্যাকে নিয়ে স্কুলে এসে সবিস্তারে তার স্বামী ইয়াকুবের সম্পর্কের কথা জানান | তখনই স্থানীয় যুবকদের সঙ্গে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়ে ইয়াকুবের স্ত্রীর সঙ্গে আসা পরিজনেরা | ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে পড়ায় সেই সংঘর্ষ প্রশমিত হয় | ভিনধর্মের মেয়ে নিয়ে পালিয়ে যাওয়া ইয়াকুবের উপর প্রবল জনরোষ তৈরি হয় | অভিভাবক ও স্থানীয় বাসিন্দাদের চাপে পড়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ সেই শিক্ষকের এই কাজকে লিখিতভাবে নিন্দনীয় বলে আখ্যা দেন| প্রধান শিক্ষক জানান, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ যা সিদ্ধান্ত নেবেন তাতেই তারা সম্মত থাকবেন| প্রসঙ্গত বাংলার বিভিন্ন স্কুলে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ ও দুর্গা বাহিনী লাভ জিহাদ নিয়ে ছাত্রীদের ও তাদের অভিভাবকদের মধ্যে সচেতনতার চেষ্টা করেছিল ২০১৮-এর শেষের দিকে, অন্যান্য সব বিরোধী দল সহ শাসক দলের বাধায় যা খুব ফলপ্রসূ হয়নি |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here