বিডিওকে ডেপুটেশন দিতে যাওয়ার পথেই চড়াও তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতী, হামলার অভিযোগ কর্মকর্তাদের উপর

0

Last Updated on

বনগাঁ পৌরসভায় কার দখলে তা ঘিরে যখন রাজনৈতির উত্তাপ চরমে,সেই সময় মধ্যমগ্রামে বিডিওকে এক গুচ্ছ দাবি সম্বলিত ডেপুটেশন দিতে গিয়ে শাসক দলের দুষ্কৃতীদের হাতে বেধড়ক মার খাওয়ার অভিযোগ তুললেন সেখানকার বিজেপি নেতৃত্ব | মারের প্রতিবাদে মধ্যমগ্রাম চৌমাথা রাস্তা অবরোধ ,পরে মধ্যমগ্রাম থানার সামনে বিক্ষোভ দেখান তাঁরা | পরে মধ্যমগ্রাম থানায় এফআইআর দায়ের করা হয় |

ঘটনার সূত্রপাত বৃহস্পতিবার দুপুরে | বিজেপির কমপক্ষে ১৫০-২০০জন সমর্থক বাইক ও গাড়ি করে মধ্যমগ্রাম বিডিও অফিসের দিকে রওনা দেন | অভিযোগ, সে সময়ে পথের মাঝে দাঁড়িয়ে থাকা তৃণমূলের বেশ কিছু সমর্থক রাস্তায় নেতৃত্বের গাড়ি লক্ষ্য করে ইট পাটকেল ছুঁড়তে থাকে | গাড়ি থেকে নামিয়ে হেনস্থার চেষ্টাও করা হয় | এলোপাথাড়ি মারধরের চোটে ওখানেই বেশ কিছু বিজেপি নেতৃত্ব ও সমর্থক গুরুতর আহত হন | এই খবর চাউর হওয়ার পর বিজেপির বেশ কিছু সমর্থক পথের মাঝখান থেকেই রণে ভঙ্গ দিতে বাধ্য হন | তাঁরা ফিরে গিয়ে মধ্যমগ্রাম চৌমাথা অবরোধ করেন | সেখানেও তাঁদের পুলিশ উঠে যেতে বাধ্য করেন বলে অভিযেগ বিজেপি সমর্থকদের | এরপর তার প্রতিবাদে থানার সামনে ফের বিক্ষোভ দেখানো হয় |

কিন্তু যে ডেপুটেশন দেওয়ার কথা ভেবেছিলেন ,তাতে কি ছিল? কেন পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি হওয়ার পরও হিংসা ছড়ালো ? ১৪টি দাবি সম্বলিত ডেপুটেশনের প্রথম অভিযোগই ছিল বিজেপি কর্মীদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ গ্রহণের আবেদন | ব্লক ও পঞ্চায়তে স্তরের সরকারি নানা প্রকল্পে যে দুর্নীতি তা নিয়েও আলোকপাত করা হয়েছে এতে |

বিজেপি নেতৃত্বের এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে বক্তব্য পুলিশকে আগে থেকেই জানানে হয়েছিল এই কর্মসূচির কথা | পর্যাপ্ত ব্যবস্থা ও নিরাপত্তার আবেদনও করা হয়েছিল | কিন্তু তারপরেও ঘটনার সময় মাত্র হাত গুনে ১৪-১৫জনের বেশি পুলিশ কর্মী সেখানে উপস্থিত ছিলেন না | প্রশ্ন উঠছে তবে কি কর্মসূচি জানার পরই পুলিশের তরফে এই হিংসা ঠেকানোতে প্রথম থেকেই অনীহা ছিল ? ঘটনার পর এফআইআর হলেও এখনও কাউকে গ্রেফতার বা আটক করা হয়েছে বলে খবর মেলেনি |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here