৪০ টাকা জমা দিলে তবেই মিলবে সবুজ সাথীর সাইকেল, ফরমান প্রধান শিক্ষকের

0

Last Updated on

আসলে ফারাকটা ঠৌঁট ও কাপের মধ্যে হলেও বাস্তবে তা অনেকটা | মানে সরকারি স্কুলগুলি চালনোর যে টাকা অনুদান হিসেবে আসে তার থেকে প্রয়োজন অনেক বেশি | এই যেমন সরকারের ফরমানে বিভিন্ন পালনীয় দিনে অনুষ্ঠান করতে হবে, ঘটা করে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা করতে হবে,স্বচ্ছতা অভিযানে অংশগ্রহণ করতে হবে,স্বরস্বতী পূজা করতে হবে ,এসবই হবে সরকারের দেওয়া যথসামান্য অর্থের বিনিময়ে | কিন্তু বিদ্যালয়গুলি তো অলাভজনক সরকারি সংস্থা | এই টাকা গুলি কোথা থেকে আসবে ? তার খোঁজ রাখে শিক্ষা দফতরের উর্ধতন কর্তৃপক্ষ ? না কোন সাফাই নয় তবে এই কারণই দেখিয়েছেন সবুজসাথীর সাইকেলের বিনিময়ে মাথাপিছু ৪০টাকা নেওয়া স্কুলের প্রধান শিক্ষক বৃন্দাবন পাল | সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি যা বলতে চেয়েছেন তার সারমর্ম এটিই | তবে বৃন্দাবন বাবুর স্কুলে ঠিক এই ঘটনাই ঘটেছে কিনা তা তদন্ত সাপেক্ষ |

ঠিক কি হয়েছিল কুলটির মিঠানি হাইস্কুলে ? সবুজ সাথীর সাইকেল সেখানে নাকি বিলি হয়েছে টাকার বিনিময়ে । ৪০ টাকা দিলে তবেই মিলবে সাইকেল । প্রধান শিক্ষকের এমন ফরমানে হতবাক পড়ুয়া থেকে অভিভাবকরা । ঘটনা শুনে পৌঁছয় সংবাদমাধ্যম | মুখ্যমন্ত্রী যেখানে বিনামূল্যে সাইকেল বিলি করছেন, সেখানে কোন যুক্তিতে তিনি ৪০ টাকা করে নিচ্ছেন ? প্রশ্নের জবাবে প্রধানশিক্ষক বৃন্দাবন পাল বলেন উত্তর দেন, টাকা না নিলে কি করে কাজটা হবে ? বাকী উত্তর না দিয়েই প্রধান শিক্ষক তার অফিসে ঢুকে পড়েন ।

মঙ্গলবার পিকআপ ভ্যানে করে সবুজ সাথীর নতুন সাইকেলগুলি ঢোকে । জানা গেছে আসানসোলের পোলো ময়দানে সাইকেলগুলি রাখা ছিল । সেখান থেকেই ২০০ টি সাইকেল আনা হয় মিঠানি স্কুলের জন্য নবম শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে তা বিলি করার জন্য । কিন্তু ছাত্রছাত্রীরা জানতে পারেন ৪০ টাকা করে জমা দিতে হবে ক্লাস টিচারের কাছে । তবেই পাওয়া যাবে সাইকেল | অভিভাবকদের দাবি, তাঁরা জানতে পেরেছেন সাইকেলগুলি স্কুলে আনতে যে খরচ হয়েছে তার ভাড়া বাবাদ নাকি পড়ুয়া পিছু টাকা নেওয়া হয়েছে ।

ঘটনাটি জানাজানি হতেই জেলা স্কুল পরিদর্শক থেকে পরিচালন সমিতি সবাই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন । তাঁদের দাবি প্রধান শিক্ষক যদি এই ধরনের কিছু করে থাকেন তবে তা অনৈতিক| তবে আগেও এই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্কুল একাধিক অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে । অভিযোগ,ফান্ডে টাকা পড়ে থাকা সত্বেও চার বছর ধরে স্কুল পড়ুয়াদের পোশাক দেয়নি এই প্রধান শিক্ষক বৃন্দাবন পাল ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here