পুরসভাকে অগ্রাহ্য করে খুলে ফেলা হোর্ডিং ফের লাগালো বিজ্ঞাপনী সংস্থা, হতবাক পুর আধিকারিকেরা

0

Last Updated on

রাইজিং বেঙ্গল ডেস্ক: মুখ ঢেকে যায় বিজ্ঞাপনে – সৌজন্যে হোর্ডিং, যার অধিকাংশই বেআইনি । শহরের সৌন্দর্যায়নের এক বড় শত্রু এইসব বিজ্ঞাপনী হোর্ডিং । দুর্গাপুজোর বোধনের আগেই সেই সব বেআইনি হোর্ডিং-এর বিরুদ্ধে অভিযান চালালো হাওড়া পুরসভা । এর আগেও সেপ্টেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহেই রাতে অভিযান চালিয়ে খুলে ফেলা হয়েছিল বেআইনি হোর্ডিং। কিন্তু অভিযোগ উঠেছে, আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে আবার রাতারাতি ওইসব বেআইনি হোর্ডিং পুনরায় লাগিয়ে দিয়ে গেছে সংস্থার লোকেরা । এই ঘটনায় কার্যতই হতবাক পুরসভার আধিকারিকরা ।

হাওড়ার পুর প্রশাসক তথা পুর কমিশনার বিজিন কৃষ্ণ বলেন, ৭০টি বড় হোর্ডিং খুলে দেওয়ার কয়েকদিনের মধ্যেই আবার রাতের অন্ধকারে সেগুলি লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে পুরসভায়।

পুরসভা সূত্রে জানা গেছে, হাওড়া শহরে এই মুহুর্তে ১২০টিরও বেশী বেআইনি হোর্ডিং রয়েছে । ২০১৫ সালে তৎকালীন পুরোবোর্ড হাওড়া শহরে হোর্ডিং লাগানোর জন্যে ৪টি সংস্থার সাথে ৩ বছরের চুক্তি করেছিল । সেই চুক্তির মেয়াদ শেষ হয় ২০১৮ সালের জুন মাসে । চুক্তির মেয়াদ শেষের পর চুক্তির পুনর্নবীকরণ না করিয়েই পুরানো চুক্তির ভিত্তিতে অর্থের লেনদেনের বিনিময়ে বেআইনি পথে কাজ চলছিল বলে পুরসভা সূত্রে জানা গেছে । পুর কমিশনার আরো বলেন, পুরোনো চারটি সংস্থার মধ্যে ২টি সংস্থার কাছ থেকে পাওনা প্রায় দেড় কোটি টাকা যা অনাদায়ে হোর্ডিং খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় পুরসভা ।

সেপ্টেম্বর মাসের ২১ ও ২২ তারিখ পুরসভার পক্ষ থেকে অভিযান চালিয়ে হাওড়া স্টেশন ও উত্তর হাওড়ার বেশ কিছু অংশ থেকে প্রায় ৭০টি বড় হোর্ডিং খুলে নেওয়া হয়। কলকাতা পুরসভার হোর্ডিং খোলার জন্যে ব্যবহৃত বিশেষ গাড়ি এনে দুই দিন গভীর রাতে হোর্ডিংগুলি খুলে ফেলার কয়েকদিনের মধ্যেই আবার সেই হোডিং লাগিয়ে ফেলার অভিযোগ উঠেছে সংস্থার বিরুদ্ধে । প্রসঙ্গত পূজার পরেই নতুন করে হোর্ডিং-এর সংস্থা নিয়োগ করার জন্যে ইতিমধ্যেই টেন্ডার ডাকার প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন কমিশনার । এরইমধ্যে পুরসভার খুলে দেওয়ার পরেও কীভাবে সংস্থার লোকজন ওই হোর্ডিংগুলি আবার লাগিয়ে দিল, সেটাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন|

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here