হাসপাতাল চত্বরে দুষ্কৃতীদের দৌরাত্ম্য; প্রশ্নের মুখে সরকারি হাসপাতালের নিরাপত্তা

0
Durgapur Sub-divisional hospital

Last Updated on

রাইজিং বেঙ্গল ডেস্ক; ১০ই সেপ্টেম্বর,২০১৯ : হাসপাতালে মানুষ আসে অসুস্থ শরীরকে সুস্থ করে তুলতে। মানুষের সেই ভরসার স্থানটিই যদি রাতের অন্ধকারে হয়ে ওঠে দুষ্কৃতীদের স্বর্গরাজ্য সে ক্ষেত্রে মানুষের নিরাপত্তা বিরাট এক প্রশ্নচিহ্নের মুখোমুখি হয়ে পড়ে। দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালের বতর্মান পরিস্থিতি এখন সেরকমই এক প্রশ্নচিহ্নের মুখে।

আরও পড়ুন:
https://risingbengal.in/hunger-strike-of-labourers-in-jute-mill/

সোমবার রাতে হাসপাতাল চত্বরে মর্গের সামনে এক অটোচালক কে খুনের চেষ্টার ঘটনায় এই সরকারি হাসপাতালের রোগী ও তাদের আত্মীয়-স্বজনরা স্বাভাবিকভাবেই অত্যন্ত আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। পরিস্থিতি এতটাই উদ্বেগজনক যে রাহুল পাশোয়ান নামের এক দুষ্কৃতীকে বিধান নগর পুলিশ গ্রেপ্তার করলেও রোগী ও তার বাড়ির লোকজন নিরাপত্তা বিষয়ে নিশ্চিত হতে পারছেন না।

আরও পড়ুন:
https://risingbengal.in/abhinaba-kayday-bikkhov-pradarshan-shatadhik-mahilar/

ঘটনার সূত্রপাত হয় যখন অটোচালক অয়ন ব্যানার্জি এক বেসরকারি হাসপাতাল থেকে রোগী ও তার পরিবারকে রেখে বিধাননগর হাসপাতালের দিকে ফিরছিলেন। সেই সময় রাহুল পাশওয়ান নামক ওই দুষ্কৃতীকে দেখতে পেয়ে তাকে ধাওয়া করেন অয়ন। এই রাহুল এবং তার দাদা মনোজ পাশওয়ান যে কিনা ওই হাসপাতালের একজন স্বাস্থ্যকর্মী এরা দুজন এবং এদের একটি দল বিধাননগর এলাকায় দাপিয়ে বেড়ায় এবং বিভিন্ন দুষ্কর্ম করে বেড়ায় যার মধ্যে অন্যতম হলো গাড়ির ব্যাটারি চুরি। এই রাহুল পাশওয়ান কিছুদিন আগে অয়ন-এর এক বন্ধুর গাড়ির ব্যাটারি চুরি করে চম্পট দেয়। তাই সোমবার রাতে ওই রাহুল পাশওয়ান কে দেখে ধাওয়া করে অয়ন নামের ওই অটোচালক। পরিস্থিতি বেগতিক বুঝে রাহুল মহকুমা হাসপাতালের মর্গের সামনে শুয়ে পড়ে এবং ওখান থেকেই দাদা মনোজকে ফোনে সব ঘটনা বলে। রাহুলের ফোন পেয়ে মোটরবাইক নিয়ে হাসপাতাল চত্বরে হাজির হয় মনোজ ও তার দলবল।

আরও পড়ুন:
https://risingbengal.in/howrah-hospital-theke-palanor-chesta-asamir/

এরপর ওই অটোচালককে পেছন থেকে অতর্কিতে আক্রমণ করে তাঁর হাত-পা বেঁধে ফেলে এবং মনোজ পাশওয়ান নামের ওই স্বাস্থ্যকর্মী চপার দিয়ে অয়নের ঘাড়ে আঘাত করে। এরপর রক্তাক্ত অবস্থায় ওই অটোচালক অয়নকে মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অয়নের অভিযোগ,এই রাহুল ও মনোজের পুরো দলটা গোটা বিধান নগর এলাকায় চুরি করে বেড়ায় এমন কি ওরা মহাকুমা হাসপাতাল এর কম্পিউটারও চুরি করেছে। ঘটনার খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে আসেন স্থানীয় ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর দীপেন মাজী। তিনি বলেন, বিধান নগরের মতো অভিজাত এলাকার বাসিন্দারা অত্যন্ত আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন ওই দুষ্কৃতীদের দৌরাত্ম্যে। পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বিষয়টিতে কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য।

আরও পড়ুন:
https://risingbengal.in/pukur-katar-jaal-nathi-diye-kendriya-taka-nay-chhayer-abhijog-panchayeter-biruddhe/

তবে সবকিছুর মধ্যে একটা প্রশ্নই উঠে আসছে তা হলো সরকারি হাসপাতালে নিরাপত্তা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাসপাতালের কিছু অস্থায়ী কর্মী বলেন রাত হলেই হাসপাতাল চত্বরে মদ গাঁজার আখড়া বানায় মনোজ ও তার দলবল। সবাই সবটা জেনেও ওই দুষ্কৃতীদের ভয়ে চুপ করে থাকে। এ বিষয়ে দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালে ডাক্তার দেবব্রত দাস জানান মঙ্গলবার তিনি পুলিশের সাথে এ বিষয়ে আলোচনা করবেন এবং হাসপাতাল চত্বরে পুলিশি টহল যাতে বাড়ানো যায় সে নিয়েও কথাবার্তা বলবেন। হাসপাতাল চত্বরে এভাবে একজনকে খুনের প্রচেষ্টায় স্বভাবতই প্রশ্নের মুখে সরকারি হাসপাতালে নিরাপত্তা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here