গণপিটুনি ঠেকাতে আইনের দাবাই দুর্গাপুর কমিশনারেটের

0

Last Updated on

বিগত বেশ কিছুদিন ধরেই পশ্চিম বর্ধমানের বিভিন্ন এলাকায় ছেলে ধরা সন্দেহে জনরোষে বেশকিছু মানুষের প্রাণ সংশয়ের ঘটনা ঘটতে দেখা গেছে । তাদেরকে উন্মত্ত জনতার হাত থেকে রক্ষা করতে গিয়ে অনেক ক্ষেত্রে আক্রান্ত হয়েছে পুলিশও| রাইজিং বেঙ্গলে আমরা পরপর সেসব ঘটনার তুলে ধরেছি | আসানসোলে বুধবার ১১-ই সেপ্টেম্বর গণধোলাইয়ের কারণে এক অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির মৃত্যু পর্যন্ত হয় বলে খবর ।


শুধু যে আসানসোল তাই নয়, অন্ডাল,জামুরিয়া,দুর্গাপুরেও বিগত কয়েকদিন ধরেই জনরোষে মৃত্যুর ঘটনা ঘটে চলেছে পরপর বেশ কিছুদিন । তা রুখতে এবার তৎপর হতে দেখা গেল দুর্গাপুর পুলিশ কমিশনারেটকে | এলাকায় ছড়ানো গুজবের কারণে এলাকাবাসী সন্দেহজনক কাউকে দেখলেই যাতে কিছু না ভেবে গণধোলাই শুরু করে,তাই একটি নিশ লিফলেটের আকারে বৃহস্পতিবার কমিশনারেটের পক্ষ থেকে প্রকাশ করা হয় | সেই নোটিশে বলা হয় যে, “শিশু চুরি বা ছেলে ধরা এইসব প্রসঙ্গে যে গুজব ছড়ানো হচ্ছে ওইসব গুজবে কান না দিতে । এর ফলে ভিক্ষুক,পাগল ও অনেক বাইরের অচেনা মানুষ হয়রানির শিকার হচ্ছেন যেটা আইনত অপরাধ ।” প্রশাসনের পক্ষ থেকে আরও বলা হয়েছে এলাকায় যদি কোনো সন্দেহজনক ব্যক্তি ঘোরাফেরা করতে দেখা যায় তাহলে আইন নিজেদের হাতে না তুলে নিয়ে তৎক্ষণাৎ পুলিশে খবর দিতে । এইজন্য পুলিশ কমিশনারেটের আধিকারকিদের সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য বেশ কিছু নম্বরও দেওয়া হয়েছে জারি করা নোটিশটিতে । প্রশাসনের কড়া নির্দেশ অমান্য করে আইন নিজের হাতে তুলে নেবেন তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দেওয়া হয় ।


প্রসঙ্গত এই ধরনের ঘটনায় যথেষ্ট উদ্বিগ্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় | কি করাণে এত অসহিষ্ণুতা বাড়ছে তা খতিয়ে দেখার নির্দেশ খওদ নবান্ন থেকেই এসেছে বলে সূত্রের খবর | সেই সঙ্গে জন সচেতনতা গড়ে তোলা ও প্রশাসনের উপরে জন আস্থা কায়েম করার উদ্দেশ্যেই এই পদক্ষেপ করা বলে মনে করছেন দুর্গাপুরের মানুষ |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here