পণের টাকা নিয়ে আর সংসারে নারাজ যুবকের বিরুদ্ধে পুলিশে নালিশ স্ত্রীর

0
DOWRY-STORY-OF-BALURGHAT

Last Updated on

রাইজিং বেঙ্গল ডেস্ক : প্রেমের সম্পর্ক যে বিয়ের পর এমন হবে তা বোধহয় কল্পনা করতে পারেননি শম্পা (নাম পরিবর্তিত) | বালুরঘাট চকভৃগু এলাকার বাসিন্দা শম্পা দাসে (নাম পরিবর্তিত) বালুরঘাট ডিম পট্টি এলাকার বাসিন্দা অভিজিৎ দাসকে ভালোবেসে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বোল্লা মন্দিরে বিয়ে করেন এবং বিয়ের পর তারা শম্পা দাসের বাড়ির কাছেই থাকতে শুরু করে । কিন্তু বিয়ের পর থেকেই অভিজিৎ দাসের অন্য মূর্তি দেখা যায় বলে অভিযোগ করেন শম্পার পরিবার । স্ত্রী শম্পা দাসের কাছ থেকে পণের টাকা দাবি করতে থাকে আর তা না পেয়ে তার উপর অত্যাচার শুরু করে বলে অভিযোগ । মেয়ের উপর হওয়া অত্যাচার যাতে বন্ধ হয় তাই ইতি মধ্যেই জামাই অভিজিৎ দাসকে তার শম্পার বাবা লাখ দুয়েক টাকা দিয়েছিলেন,জানান শম্পার বাবা । কিন্তু যে তাদের অভিযোগ যে টাকাটা পাওয়ার পর থেকেই শম্পার সঙ্গে তার স্বামী আর সংসার করতে চাইছে না ।

আরও পড়ুন – মহিলার সঙ্গে অশালীন আচরনের শাস্তি দিলো প্রমীলাবাহিনী

এরই মধ্যে অভিজিৎ দাসের মা শম্পা দাসের বাড়ি গিয়ে গন্ডগোল করে অভিজিৎ দাসকে সেখান থেকে নিজের সঙ্গে নিয়ে আসে বলেও অভিযোগ শম্পার পরিবারের । শুক্রবার শম্পা দাস তার মাকে নিয়ে অভিজিৎ দাসের বাড়িতে পণ হিসেবে দেওয়া দুলাখ টাকা ফেরৎ চাইতে গেলে সেখানে তাদের মারধর করা হয় বলে অভিযোগ করেন শম্পা ।

আরও পড়ুন – শ্রমিকের পচাগলা দেহ উদ্ধার মিলের ভিতর থেকে,আঙুল কর্তৃপক্ষের দিকে

অন্যদিকে অভিজিৎ দাসের পরিবার পণের টাকা নেওয়ার অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করে শম্পা দাসের বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করেন যে,অভিজিৎ দাসের কাছ থেকেই পঞ্চাশ হাজার টাকার ওপরে শম্পা দাস আদায় করেছে এবং আরও টাকা চেয়ে চাপ দিচ্ছে । এই অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে পুলিশের কাছে খবর গেলে মহিলা থানার পুলিশ এলাকায় ছুটে যায় । এরপর সাওয়াল জবাবের জন্য দুই পক্ষকেই থানায় ডেকে পাঠানো হয় । কিন্তু শেষ পাওয়া খবর অনুসারে অভিজিৎ দাস থানায় উপস্থিত হয়নি । তার এই অনুপস্থিতি স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন চিহ্ণ তুলে দিচ্ছে তার তোলা অভিযোগের সত্যতা নিয়ে |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here