ডাইনি তাড়ালে তবেই সুস্থ হবে রোগী , নিদান এক তন্ত্রগুরুর

0

Last Updated on

ডাইনি অপবাদে এক ঘরে করার অভিযোগ আদিবাসী দম্পতিকে । মারধরের পাশাপাশি মিলেছে ঘর ছাড়া করারও হুমকি, আতঙ্কে কাঁটা ওই দম্পতি ।

মেদিনীপুর সদর ব্লকের গুড়গুড়িপাল থানার অন্তর্গত শিরিষডাঙার বাসিন্দা গুরুদাস মান্ডি ও তাঁর স্ত্রী বুধিন মান্ডি | এক তন্ত্র গুরুর নিদানে ডাইনি অপবাদে তাঁদের একঘরে করেছে গ্রামের বাসিন্দারা । অভিযোগ, দিন কয়েক আগেই নিজের ভাইঝির অসুস্থতাকে কেন্দ্র করে কেশিয়াড়ির খড়িকা এলাকার জনৈক ব্যক্তি এক তন্ত্র গুরুর কাছে যান | সে সময় জানগুরুই বলে দেন তাদের ভাইজিকে সুস্থ করতে হলে আগে তাড়াতে হবে ওই গ্রামে বসবাস করা ডাইনি মান্ডি দম্পতিকে ।

এর পরই গ্রামে ফিরে এসে সেই ব্যক্তি অন্যান্য গ্রামবাসীদের গুরুর নিদান বললে শুরু হয় ওই দম্পতির উপর অত্যাচার । জানা গিয়েছে, তন্ত্র গুরুর নিদান অনুযায়ী আসছে সপ্তাহের মঙ্গলবার গ্রামে গুণিন এসে পুজোর মাধ্যমে ওই আদিবাসী দম্পতিকে তাড়ানোর বন্দোবস্ত করেছে গ্রামবাসীরা | গ্রামবাসীদের বক্তব্য ,তাঁরা ওই দম্পতিকে গ্রাম ছেড়ে যাওয়ার কথা ভালোভাবে বললেও মোটেও কর্ণপাত করেনি তারা, তাই তাদের এই পন্থা নিতে হয়েছে |

অন্যদিকে বারবার হুমকির মুখে পরে শেষ পর্যন্ত শনিবার দম্পতির পক্ষ থেকে গুড়গুড়িপাল থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয় । গ্রামেব ভিটে ছেড়ে আতঙ্কে ওই আদিবাসী দম্পতি আশ্রয় নিয়েছে স্থানীয় থানার পাশেই শিমুলিয়া গ্রামে এক আত্মীয়ের বাড়িতে ।

গ্রামে এত ঘটনা ঘটলেও তাতে হস্তক্ষেপ করেনি কেন গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান বা সদস্যরা ? সংবাদ মাধ্যমের চাপে পড়ে শেষমেশ এই ঘটনা বরদাস্ত করা হবে না বলে দাবি করেন স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রধান অঞ্জলি সোরেন ।

ডাইনি অপবাদ নিয়ে সচেতনতা যতই বাড়ানো হোক না কেন এই অসুখ যে এখনও প্রান্তিক গ্রামগুলির বাসিন্দাদের মনের শিঁকড়ে গেঁথে আছে,তা আরও একবার প্রমাণ করে দিল শিরিষডাঙ্গার ঘটনা ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here