ডাইনি সন্দেহে খুনের নিদান গ্রামের মাতব্বরদের আতঙ্কে ঘরছাড়া আদিবাসী পরিবার

0

Last Updated on

রাইজিং বেঙ্গল ডেস্ক : ভারতের অন্য কোথাও নয়, এই রাজ্যেই ডাইনি সন্দেহে ঘরছাড়া হতে হয় দম্পতিকে | আধুনিক মনস্কতায় আর উদারমনা বাঙালির নাম বিশ্বজোড়া | সেই বাংলায় এমন ঘটনা নিঃসন্দেহে প্রশ্ন তোলে অনেক কিছুই |
রায়গঞ্জের শীতগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের এক আদিবাসী পরিবারের একজনকে ডাইনি সন্দেহে খুনের নিদান জারি করেছে মহল্লার সমাজের মাতব্বরগণ । সেই আতঙ্কে ঘরছাড়া ওই অসহায় আদিবাসী দম্পতি নিরুপায় হয়ে রায়গঞ্জ থানার দ্বারস্থ হয়েছে । থানার কাছ থেকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের আশ্বাস পেয়ে বাসায় ফেরার বিষয়ে আশার আলো দেখতে পেয়েছে ওই দম্পতি ।

আরও পড়ুন: আত্মহত্যার ‘দোষ’ কাটাতে নরবলির আয়োজন আসামের এক পরিবারের

রায়গঞ্জ থানার শীতগ্রাম পঞ্চায়েতের ইকোর গ্রামের বাসিন্দা সামিয়া হাসদা ও তার স্বামী মন্টু হেমব্রমের কথায়, বুধবার রাতে খাওয়া-দাওয়ার পর তারা দুজনে ঘুমোতে যায় । এর কিছুক্ষণ পরেই তারা কিছু মানুষের হাঁটা চলার শব্দ শুনতে পায় । আরো ভালো করে শোনার জন্য কান পাততেই তারা শুনতে পায় ডাইনি হত্যার জন্য জমায়েত হয়েছে গ্রামের কিছু আদিবাসী মানুষজন । অবস্থা বেগতিক দেখে প্রাণ ভয়ে ওই অন্ধকারের মধ্যেই চুপিসারে ঘর থেকে বেরিয়ে গা ঢাকা দেয় সামিয়া ও মন্টু ।

বুধবার দিনের বেলাতেই এলাকার কিছু মানুষ সামিয়াকে জানিয়েছিল সমাজের কিছু মাতব্বর গঙ্গারামপুর থেকে গণনা করে তাকে এলাকার ডাইনি বলে চিহ্নিত করেছে । আর সেই রাতেই সামিয়ার বাড়ির সামনে আদিবাসী মানুষরা জমায়েত হলে স্বাভাবিকভাবেই আতঙ্কিত হয়ে পড়ে সামিয়া ও মন্টু । তারপর রাতভর তারা ঘরছাড়া হয়ে গ্রামের পাশেই লুকিয়ে থাকে । দিনের আলো ফুটতেই ওই দম্পতি রায়গঞ্জ থানার দ্বারস্থ হয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করে । সামিয়া জানিয়েছে, এর আগেও একবার তাকে ডাইনি অপবাদ দেওয়া হয়েছিল । সেই সময়ও পুলিশের মধ্যস্থতায় আলোচনার মাধ্যমে ঘটনার মীমাংসা হয়েছিল । এবারেও ওই আদিবাসী দম্পতি পুলিশি সহায়তার আশ্বাস পেয়েছে বলেই জানিয়েছে । সেই আশ্বাসেই এখন বাড়ি ফেরার অপেক্ষায় সামিয়া ও মন্টু ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here