বিশালাকার শঙ্খধ্বনিতে সাঙ্গ হয় ভূবনেশ্বরী মন্দিরের কালীমাতার পুজো

0

Last Updated on

রাইজিং বেঙ্গল ডেস্ক : শাস্ত্র মতে মঙ্গল শঙ্খ প্রতি দিনই বাজানো গেরস্থের জন্য কল্যাণময় | মঙ্গল শঙ্খ বাজানোর চল সেই কোন যুগ থেকে ধরে রেখেছেন বর্ধমান শহরের মিঠাপুকুর এলাকার সোনার কালীবাড়ির পুরোহিতেরাও | ঐতিহাসিক স্থাপত্য ও নানা কাহিনী সমৃদ্ধ পূর্ব বর্ধমানের ভুবনেশ্বরী মন্দির বা সোনার কালী বাড়ি কালী পুজোর সময় মজে ওঠে উৎসবে । প্রাচীন এই মন্দিরের বিশাল আকার শঙ্খের আওয়াজেই পুজো সম্পন্ন হয় এই সোনার কালী বাড়িতে । আকারে প্রায় এক হাতের এই শঙ্খটি কোনও সাধারণ শঙ্খ নয় । কথিত আছে, বর্ধমানের মহারানী এক সমুদ্র তটে গিয়ে এই বৃহৎ শঙ্খটি পেয়েছিলেন । তারপর ফিরে এসে তিনি এই মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন ও সেখানে এই শঙ্খটিও প্রতিষ্ঠা করেন । এই শঙ্খটি নিয়ে ভিন্ন মতও প্রচলিত আছে। সেই মত অনুসারে, বর্ধমানের মহারাজ সুদূর ইতালি থেকে আনিয়েছিলেন এই প্রাচীন শঙ্খটি । তবে নেপথ্য কাহিনী যাইহোক ,পুজোর সময় আজও সেই শঙ্খের আওয়াজে মুখরিত হয়ে ওঠে মন্দিরের প্রতিটি কোণ ।

শুধু শঙ্খ নয়, এই মন্দিরের ঐতিহাসিক স্থাপত্য সম্পর্কেও নানান কাহিনী জড়িয়ে রয়েছে । স্থানীয় সূত্রে কথিত আছে, বর্ধমানের মহারাজা মহাতাব চাঁদের পত্নী নারায়নী কুমারী খুব ধর্ম পরায়ণ মহিলা ছিলেন । মহারানী নারায়নী দেবী তন্ত্র সাধনায় বিশ্বাস করতেন ও সর্বক্ষন পূজা-অর্চনা নিয়ে ব্যস্ত থাকতে ন। মহারানীর জন্যই ১৮৯৯ সালে মিঠাপুকুর এলাকায় মহারাজা এই মন্দিরটি নির্মাণ করেন । মহারানীর নামের সঙ্গে মিল রেখে এই মন্দিরের নামকরণ করা হয় নারায়নী মাতা ভুবেনেশ্বরী মন্দির ।

আরও পড়ুন:মহারাজা নন্দকুমারের স্মৃতি আগলে আকালীপুর https://risingbengal.in/featured/guhya-kalika-of-nandakumar/

রাজ পুরোহিতরা জানান এক সময় মন্দিরের মুর্তিটি সোনার নির্মিত ছিল। সেই কারণে পরবর্তী সময়ে ওই মন্দির সোনার কালী বাড়ি হিসাবে পরিচিতি লাভ করে। সত্তরের দশকে মন্দির থেকে চুরি হয়ে যায় সেই মূল সোনার মূর্তিটি। এরপর সেই সোনার কালী মূর্তির পরিবর্তে অন‍্য আর একটি কালী মূর্তি বানানো হলেও এই মন্দির আজও সোনার কালী বাড়ি নামেই পরিচিত । সারা বছর তেমন ভক্ত সমাগম না থাকলেও এই মন্দিরটিতে কালীপূজোর সময় মানুষের ঢল নামে ।

আরও পড়ুন: বীরাঙ্গণা সাধিকা ময়নামতী https://risingbengal.in/featured/history-of-mainamoti/

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here