রাতারাতি ১৪ লাখে জলাশয় ইজারা দিলেন তৃণমূল পঞ্চায়েত প্রধান,উঠছে ‘কাটমানি’ তত্ত্ব

0

Last Updated on

গঙ্গা অ্যাকশন প্ল্যানের মাধ্যমে পরিশ্রুত পানীয় জল যাতে পাওয়া যায় কোনন্নগরে তার জন্য কাজ শুরু হয়েছিল ২০০৫ সালে | তারপর যে কোন কারণেই হোক না কেন বন্ধ হয়ে যায় সেই প্রকল্পের কাজ | সেই প্রকল্পের আওতাভূক্ত কয়েকটি জলাশয় কাটা হয়েছিল| প্রকল্পের কাজ বন্ধ হলেও সেই জলাশয়গুলিতে এলাকার মানুষ মাছ চাষ শুরু করেন | তাতে কেউ কখনো আপত্তি করেন নি | ৬০টি পরিবার সেই মাছ চাষের মাধ্যমেই জীবীকা নির্বাহ করেন বিগত ১৫ বছর ধরে | জলাশয়গুলির রক্ষণাবেক্ষণের ভারও ছিল তাদের উপরেই ন্যস্ত | সেই মাছ ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, প্রায় এক বছর ধরে মাছ চাষ করতে পারছিলেন না তারা | স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রধান ওই পুকুরে মাছ চাষের জন্য টাকা দাবি করেন বলে অভিযোগ তাদের | তারা দিতে অসমর্থ হওয়ায় বন্ধ হয়ে যায় মাছ চাষ | কয়েকদিন আগে কিছু বহিরাগত এসে ওই জলাশয়গুলি পরিষ্কার করতে শুরু করলে স্থানীয় মানুষের বিক্ষোভের মুখে পড়ে তারা | খবর নিয়ে এই মাছ চাষীরা জানতে পারে যে, স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রধান ১৪ লক্ষ টাকা টেন্ডারের মাধ্যমে সেই জলাশয়গুলিকে ইজারা দেওয়া হয়েছে | এই খবর পাওয়া মাত্রই বিক্ষোভ দেখা তে শুরু করেন তারা | নানা জায়গায় প্রধানের বিরুদ্ধে পোস্টার ফেলেন তারা | এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে প্রধান পাল্টা এই সকল মানুষের উপর নানাভাবে চাপ সৃষ্টি করছেন বলে অভিযোগ করেন তারা | তাদের হেনস্থার পাশাপাশি হুিমকিও দেয় তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা | জলাশয়গুলিতে মাছ চাষ করে তারা তাদের জীবীকা নির্বাহের দাবিতে পোস্টার হাতে নিয়ে বিক্ষোভ দেখান তারা | অবিলম্বে সেই জলাশয় ফেরানোর দাবি তোলেন তারা | জলাশয়গুলির রাতারাতি টেন্ডারে সেই কাটমানির অঙ্কই দেখছেন বিক্ষোভকারী মাছ ব্যবসায়ীরা | টেন্ডার যারা নিয়েছেন সেই মানুষেরা কেউই তাদের পঞ্চায়েত এলাকার বাসিন্দা নন | তাদের কাছ থেকে ওই টেন্ডার পাইয়ে দেওযার নাম করে নিজের পকেটে টাকা পুড়েছেন কানাইপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান| তৃণমূল সুপ্রিমোর হুঁশিয়ারির পরও কি তবে হুঁশ ফেরেনি এই নেতাদের ? প্রশ্ন উঠছে এই ঘটনার পর |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here