পাকিস্তানে সংখ্যালঘু শিখ ধর্মগুরুর মেয়েকে জোর করে ধর্মান্তকরণের অভিযোগ মৌলবাদীদের বিরুদ্ধে

0

Last Updated on

শুক্রবার কাশ্মীর সলিডারিটি ডে পালন করা হচ্ছে পাকিস্তানে | এদিন পিটিআই এর তরফ থেকে জানানো হয়েছে সেই কথা | কিন্তু পাকিস্তানের সংখ্যালঘুদের উপর ঠিক কি কি হচ্ছে তা নিয়ে কেন সরব হচ্ছে না তথাকতিত এদেশের নিরপেক্ষ বুদ্ধিজীবীরা | গত ২৪ঘন্টায় পাকিস্তানে যা যা হয়েছে তার একটি বিবরণ পাওয়া গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া ক্যাম্পেনার অনশূল সাক্সেনার পোস্টে | গত ২৪ঘন্টায় সবচেয়ে বড় যে কান্ড ঘটিয়েছে কট্টরপন্থী মৌলবাদীরা তা হল ,জনৈক শিখ ধর্মপ্রচারকের মেয়েকে তুলে নিয়ে গিয়ে তাকে জোর করে ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত করেছে | দেশের প্রথম সারির সংবাদ মাধ্যমে এসে না পৌঁছলেও সোষ্যাল মিডিয়ায় যা নিয়ে ঝড় তুলেছেন পাক বংশোদ্ভূত বহু উদারপন্থী মানুষেরা |

কাশ্মীরের সংখ্যালঘু মুসলমানদের জন্য দরদী পাকিস্তানী প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের কাছে ওই শিখ পরিবারটির কাতর আবেদন এর বিরুদ্ধে অবিলম্বে কোন পদক্ষেপ করুন তিনি | জানা গিযেছে,মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে এই শিখ মেয়েটিকে নানকানা সাহেব শহর থেকে তুলে নিয়ে যায় পাকিস্তানি মৌলবাদীরা | মাত্র ১৯বছরের জগজিত কৌরকে বাধ্য করা হয় মুসলিম ছেলেকে বিয়ে করার জন্য,দাবি ওই শিখ পরিবারটির | চলতি মাসের ২৭ ও ২৮তারিখের মধ্যে হওয়া এই ঘটনার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হলেও ওই মেয়েটিকে ফিরিয়ে আনতে কোন উদ্যোগই নেয়নি প্রশাসন অভিযোগ তাদের | ফলে তারা শরণাপন্ন হন পাক প্রধানমন্ত্রীর | তারা অবিলম্বে তাদের মেয়েকে ফেরত চেয়ে দরবার করেন | থানায় করা অভিযোগ তুলে নেোয়ার জন্য রীতিমত খুনের হুমকি দেোয়া হচ্ছে বলে জানায় ওই মেয়েটির ভাইও |
প্রশ্ন হচ্ছে প্রতিবাদী মালালা এখন চুপ কেন ? কাশ্মীরের মানুষের উপর ‌অত্যাচারের দোহাই দিয়ে হওয়া প্রতি নিয়ত মানবাধিকার লঙ্ঘনের নজির রেখেও পাকিস্তানের মরা কান্না থামানোর কি সময় হয়নি বলে মনে করছেন এদেশের সেকুলার ইন্টেলেকচুয়ালরা ? প্রশ্ন উঠছে |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here