মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় সলিল সমাধি কমপক্ষে ৬৫ জন উদ্বাস্তু লিবিয়ানসের

0

Last Updated on

কমপক্ষে ৬৫জনের সলিল সমাধি ঘটল টিউনেশিয়ায়| চলতি বছরে এর মধ্যে ঝুঁকির পারাপার করে মারা গিয়েছেন অন্ততঃ ১৬০জন| হ্যাঁ,এই হিসেব দিচ্ছে রাষ্ট্রপুঞ্জের উদ্বাস্তু এজেন্সি| কিন্তু এরা কারা? এরা হল যুদ্ধ বিধ্বস্ত লিবিয়ার মানুষ| যারা প্রতিবছর সেখান থেকে পাড়ি দেন ইউরোপের বিভিন্ন দেশে নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য| শুক্রবারের মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় মাত্র ১৬জন বেঁচে রয়েছেন বলে জানা যায় টিউনেশিয়া নৌবাহিনী সূত্রে| তাদেরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য উদ্যোগী হয়েছেন নৌবাহিনীর আধিকারিকেরা| তবে এরা প্রত্যেকেই অন্য দেশের নাগরিক হওয়ায় উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতির জন্য অপেক্ষায় রয়েছেন তাঁরা| বেঁচে যাওয়া লিবিয়ানেরা জানান,লিবিয়ার জুয়ারা থেকে ইুরোপের উদ্দেশ্যে তারা রওনা হন বৃহস্পতিবার| নৌকোটি তার ধারণক্ষমতার থেকে অধিক যাত্রী বহন করছিল বলেও জানান তাঁরা| মেডিটেরানিয়ানের মাঝে এসে জোরালো ঢেউয়ের আঘাতে বেসামাল হয়ে পড়ে নৌকোটি| তারপরই সেটি ডুবতে থাকে| কোনমতে জলে ঝাঁপ দিয়ে প্রাণ বাঁচান কয়েকজন| তবে বেশিরভাগ মানুষই ঘটনার আকস্মিকতায় কিছু বোঝার আগেই ডুবে যান| আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসির মতে এযাবৎ কালের মধ্যে সবছেকে ভয়াবহ দুর্ঘটনা বলে অভিহাত করেছে| যদিও রাষ্ট্রপুঞ্জের রিপোর্ট অনুযায়ী,২০১৭ এর পর থেকে মধ্য প্রাচ্যের যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশগুলি থেকে উদ্বাস্তু আসার সংখ্যা প্রধানত ইউরোপে কমছে| ২০১৯ এর প্রথম তিনমাসে ১৫৯০০ জন শরণার্থী ইউরোপে এসে পৌঁছেছেন বলে জানা গিয়েছে রাষ্ট্রপুঞ্জ সূত্রে| যা আগের দুবছর,২০১৮,২০১৭ থেকে প্রায় ১৭শতাংশ কম| এর কারণ হিসেবে অবশ্য মনে করা হচ্ছে, ইতালি তাদের সেনাবাহিনীর মাধ্যমে দেশ ছেড়ে আসা শরণার্থীদের আবার দেশে ফিরিয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে শেষ দুবছর| তাই নাটকীয়ভাবে কমেছে দেশ ছাড়া মানুষের ইউরোপ পাড়ি দেওয়ার প্রবণতা| মনে করছে কূটনৈতিক মহল|

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here