ছোট্ট ভ্যালেরিয়া ও তার বাবার নিথর দেহ মনে করালো আলান কুর্দিকে,উত্তাল বিশ্ব

1

Last Updated on

বছর চারেক আগের একটি ছবি ভাইরাল হতে তোলপাড় হয়েছিল গোটা বিশ্ব | ছোট্ট আলান কুর্দির দেহ পড়ে রয়েছে তুর্কির সমুদ্র সৈকতে | কে এই অালান কুর্দি ? শরণার্থী পরিবারের সদস্য আলান | সেই ছবি চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছিল যুদ্ধ বিধ্বস্ত মধ্য আমেরিকার দেশ গুলি থেকে কীভাবে শরণার্থীরা বিপজ্জনক পথ ধরে ভিন দেশে পাড়ি দিচ্ছেন | বিপদসঙ্কুল সেই পথ ধরেই নিজের দেশ সিরিয়া ছেড়ে পরিবারের সঙ্গে কি আলানও পাড়ি দিয়েছিল ? ছোট্ট শিশুর ভেসে ওঠা লাশ সে সব প্রশ্নের মুখোমুখি করেছিল গোটা বিশ্বকে |

ঠিক সেই পুরোনো স্মৃতিকে উসকে দিল অস্কার আলবার্তো মার্টিনিজ ও তাঁর ২৪ মাসের শিশু কন্যা ভ্যালেরিয়ার ছবি | সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে ভাইরাল হওয়া সেই ছবিতে দেখা যাচ্ছে বাবা ও মেয়ে মুখ থুবড়ে পড়ে রয়েছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও মেক্সিকোর সীমানায় বয়ে যাওয়া রিও গ্র্যান্ডে নদীর পাড়ে | তাদের দুজনের মুখ গুঁজে পড়ে থাকার সেই নির্মম দৃশ্যে দেখে আবারও একবার শিউরে উঠছে গোটা বিশ্ব | ছবিতে দেখা যাচ্ছে নদীর স্রোতে তাঁর শিশু কন্যাকে হারিয়ে ফেলার ভয়ে নিজের গেঞ্জি দিয়ে একসঙ্গে বেঁধে রেখেছেন বাবা আলবার্তো | জানা গিয়েছে তাঁরা যাত্রা শুরু করে তাদের দেশ এল সালভাদর থেকে |

এই করুণ ছবি দেখে ভ্যাটিকান সিটির পোপ দুঃখ প্রকাশ করেন | তিনি প্রার্থনা করেন ভ্যালেরিয়া ও তার বাবার মত অসংখ্য শরণার্থীদের জন্য, যারা প্রতি নিয়ত এত ঝুঁকি নিয়েও নিরাপত্তার খোঁজে ভিন দেশে পাড়ি দিচ্ছেন |

এই ছবি প্রকাশের পরই তাঁর প্রতিক্রিয়া দেন ট্রাম্প | ট্রাম্প প্রশাসন ইতিমধ্যেই তাদের দেশে বেলাগামভাবে ভাবে শরণার্থী প্রবেশের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন | মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আশপাশের দেশগুলি বিশেষত মেক্সিকোকে সাবধান করা হয়েছে যাতে তাদের সীমানা দিয়ে কোন শরণার্থী গলে মার্কিন মুলুকে ঢুকে পড়তে না পারে | শরণার্থী প্রবেশ শক্ত হাতে দমন না করলে মেক্সিকোর সঙ্গে বাণিজ্য বন্ধেরও হুমকি দেয় ট্রাম্প প্রশাসন |

তারপর থেকে চোরা পথে চলতে থাকে প্রবেশ | মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বৈধ শরণার্থী শিবিরে নাম লেখানোর জন্য চোরাপথে বহু মানুষ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেশী দেশগুলির সীমানা শহরে আশ্রয় নিচ্ছেন প্রতিদিন | নদী বা সমুদ্রে ঝুঁকির পারাপারের মাধ্যমে | সেই শিবিরে আশ্রয় নেওয়ার জন্য নাম লিখিয়ে দিনের পর দিন ঝুঁকি নিয়েও থেকে যাচ্ছে সেই শহরগুলিতে | জানা গিয়েছে ভ্যালেরিয়ার পরিবারও সেই রকমই মার্কিন শিবিরগুলিতে নাম লেখানোর জন্য পাড়ি দিয়েছিলেন | কিন্তু শেষরক্ষা হল না তাঁদের |

এই ঘটনায় ফের গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে রাষ্ট্র সংঘের শরণার্থী এজেন্সির হাই কমিশনার | তাঁর মতে, এই ছবি আবারও প্রমাণ করে দেয় যে শরণার্থীদের নিরাপত্তার জন্য যা যা করা দরকার তা করছে না এই দেশগুলি | শরণার্থী মানুষের জীবনের সুরক্ষা ও নিরাপত্তা নিয়ে আর একবার প্রশ্ন চিহ্ণ তুলে গিল ছোট্ট ভ্যালেরিয়া ও তার বাবার ছবি | মনে করছেন মানবাধিকার সংগঠনগুলিও |
ছবি সৌজন্য : ইনস্টাগ্রাম

1 COMMENT

  1. এরকম নিথর দেহ দেখতে দেখতে আমাদের বাংলাদেশী হিন্দু দের চোখে নেবা পড়ার জোগাড়,

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here