ব্রাজিলের আলতামিরায় বন্দী সংঘর্ষে ৫২ জন বন্দীর মৃত্যু, নির্মমভাবে ১৬ জনের মুন্ডচ্ছেদ

0

Last Updated on

ব্রাজিলে বাড়ছে অপরাধ প্রবণতা | অপরাধীর সংখ্যা বাড়লেও ততটা বাড়েনি সংশোধনাগার | বাড়তে থাকা বন্দীদের আয়ত্তে আনা ও সুষ্ঠুভাবে তাদের রাখা ছিল এবারের ব্রাজিলের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের অন্যতম এজেন্ডা | বর্তমান ব্যবস্থায় সংশোধনাগারগুলিতে বন্দী রাখাই প্রশাসনের কাছে চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াচ্ছে | অপরাধ গোষ্ঠীগুলি সংশোধনাগার থেকে অপরাধ চক্র পরিচালনা করা ছাড়াও গ্যাং ওয়ারে যুক্ত থাকছে | কম সংখ্যক সংশোধানাগারের নিরাপত্তা রক্ষীদের পক্ষে যা সামাল দেওয়া একপ্রকার অসম্ভব হয়ে উঠছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন সেখানকার আদালতের বিচারপতিরাও |

মঙ্গলবার সকালবেলা সংশোধনাগারে বন্দী থাকা অবস্থাতেই দুই অপরাধ গোষ্ঠীর মধ্যে ধুন্ধুমার সংঘর্ষে কমপক্ষে ৫৭ জন বন্দী মারা গিয়েছেন বলে খবর | আহত আরও অনেকে | ব্রাজিলের আলতামিরার সংশোধানগারে রিওডিজেনেরোর অপরাধ গোষ্ঠী কমান্ডো ভারমেলহো এবং স্থানীয় অপরাধ গোষ্ঠী কমান্ডো ক্লাসি এ-র মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বাঁধে | পুলিশের মতে, পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী কমান্ডো ক্লাসি এ অপর গোষ্ঠীর এক বন্দীর সেলে আগুন ধরিয়ে দেয় | সেই আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে পাশপাশি সেলগুলিতে | কারণ তারা যে সেলগুলিতে ছিল সেগুলি অত্যন্ত পুরোনো ও জীর্ণ | পাশের একটি বাড়ি তৈরি করা হচ্ছিল| সেখানকার বন্দীদের তাই অস্থায়ী ভাবে রাখা হয়েছিল এই সেলগুলিতে | জানান সংশোধনাগারের মুখ্য আধিকারিক | বিধ্বংসী ওই আগুন গোটা বিল্ডিংয়ে ছড়িয়ে পড়ায় পুলিশ দীর্ঘক্ষণ ওর ভিতরে প্রবেশ করতে পারেননি | ততক্ষণে ৫৭জন পুড়ে যায় সম্পূর্ণভাবে |

পুলিশ প্রবেশ করার পর ৪৬জন বন্দীকে অন্য স্থানে স্থানান্তরিত করা হয় | যদিও আধিকারিকদের মতে সংঘর্ষে কোন আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহৃত হয়নি | প্রাথমিক ভাবে জানা যায়,ওই সংশোধনাগারের দুইজন রক্ষীকে আগে থেকেই বেঁধে রাখা হয়েছিল | তাই তারা কোন পদক্ষেপ করতে পারেনি | বন্দীদের মধ্যে এই যুদ্ধের সুযোগ নিয়ে ১৬জন বন্দী সেখান থেকে পালিয়ে গেছে বলে খবর পাওয়া গিয়েছে |

সংশোধানাগারে জায়গার তুলনায় অনেক বেশি বন্দী থাকার বিষয়টি একেবারেই গুরুত্ব দিতে নারাজ কর্তৃপক্ষ | কিন্তু এক বিচারপতি এই নিয়ে গভীর চিন্তা প্রকাশ করে একটি রিপোর্ট পেশ করেন | ২০১৯ এর এই রিপোর্টে দেখা যায়,এই আলতামিরারর সংশোধনাগারগুলির সবচেয়ে শোচনীয় অবস্থা | সেখানে তাদের বন্দী রাখার ক্ষমতা ১৬৩ হলেও সেখানে রয়েছে ৩৪৩ জন বন্দী | এত বন্দী থাকাতেই বাড়ছে তাদের মধ্যে সংঘর্ষ | আর এই রায়েটের ফলে ২০১৭সালে মারা গিয়েছে ১২০জন বন্দী | উত্তর ব্রাজিলের ড্রাগের সঙ্গে যুক্ত অপরাধে দখলদারি নিয়েই বাড়ছে এই সংঘর্ষ | কীভাবে সমাধান হবে তার দিকে নজর দিক প্রশাসন,চাইছে সেখানকার বিচারব্যবস্থাও |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here