রোহিঙ্গা শিশু, বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ ও ভারতের বিপন্ন শরণার্থীরা

    0

    Last Updated on

    উত্তম মণ্ডল

    জনসংখ্যার এক অদ্ভুত ব‍্যালেন্স তৈরি হচ্ছে প্রতিবেশি রাষ্ট্র বাংলাদেশে। একদিকে যখন সংখ্যালঘু হিন্দুরা সেদেশ ছেড়ে ভারতে চলে আসছেন, তখন সবার আড়ালে জনসংখ্যা বাড়ছে বাংলাদেশে। বাংলাদেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধির সৌজন্যে অবশ্যই রয়েছে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা। জাতিসংঘের নারী ও শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ জানিয়েছে, গত আগস্টে ৭ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশের বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নিয়েছেন। সেনা নির্যাতনের জেরে মায়ানমার থেকে চলে আসা এই রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মধ্যে ধর্ষিতা নারীদের গর্ভ থেকে বাংলাদেশের অস্থায়ী শিবিরে প্রতিদিন ৬০ টি শিশু জন্ম নিচ্ছে। এভাবে গত ৯ মাসে সেদেশে অন্তত: ১৬ হাজার রোহিঙ্গা শিশুর জন্ম হয়েছে। ইউনিসেফের বাংলাদেশ প্রতিনিধি এডওয়ার্ড বেইগবেদার জানিয়েছেন, এ বছর প্রায় ৪৮ হাজার ধর্ষিতা রোহিঙ্গা নারী মা হতে চলেছেন। বলা বাহুল্য, এরা সবাই পিতৃ পরিচয়হীন শিশু। ইউনিসেফের প্রতিনিধির মতে, ধর্ষণের জেরে কি পরিমাণ শিশু জন্মাচ্ছে বলা কঠিন, তবে প্রতিদিন প্রায় ৬০ টি শিশু নিজেদের বাড়ি থেকে দূরে এক আতঙ্কের পরিবেশে প্রথমবার শ্বাস নিচ্ছে। আর তাদের ভিটেহারা মায়েরা হিংসা ও ধর্ষণের স্মৃতি আঁকড়ে রয়েছেন। এই ১৬ হাজার শিশুর মধ্যে ৩ হাজারকে চিকিৎসা পরিষেবার মধ্যে আনতে পেরেছে ইউনিসেফ। বাকিরা লজ্জায় সামনে আসছেন না।
    বাংলাদেশের জমি খালি করে উদ্বাস্তু হয়ে সেদেশের সংখ্যালঘু হিন্দুরা ভারতে চলে আসছেন। আর অদ্ভুতভাবে সেদেশের খালি জমিতে বাড়ছে ভবিষ্যতের নাগরিকরা। তাই
    নির্যাতনের অভিযোগ তুলে ভবিষ্যতেও প্রিয়া সাহাদের আমেরিকার প্রেসিডেন্টের কাছে নালিশ জানাতে যেতে হবে আবারও। ব‍্যারিস্টার সুমনরা দেশদ্রোহিতার অভিযোগ তুলে তাদের দমানোর চেষ্টা করলেও এটাই বাংলাদেশের আগামী ভবিষ্যৎ। অন্যদিকে, বাংলাদেশ থেকে আসা বিপন্ন হিন্দু উদ্বাস্তুদের জন্য আবার নতুন করে জমি খালি রাখতে হবে ভারতকে। উদ্বাস্তু সমস্যার নতুন সকাল শুরু হতে যাচ্ছে ভারত ও বাংলাদেশ–দু’দেশের মাটিতেই।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here