নাভি-নারী- শাড়ি-যৌনতা ও রোগবালাইয়ের ন’কাহন।

1

Last Updated on

উত্তম মণ্ডল

যে নাড়ির মাধ্যমে মানুষের ভ্রূণে মায়ের শরীর থেকে খাদ্য সরবরাহ হয়ে থাকে, শিশুর জন্মের পর তা কেটে ফেলে একটি প‍্যাঁচ দিয়ে সেই কাটা মুখ বন্ধ করে দেওয়া হয়। তারপর মানুষের শরীরের ঠিক ওপরে চিরকাল থেকে যায় এই ক্ষতচিহ্ণ। কেউ কেউ একে সেক্স সিম্বল বলে থাকেন, কিন্তু আসলে এটি হলো মানুষের শরীরের একটি স্থায়ী ক্ষত চিহ্ন। জন্মের পর মায়ের শরীর থেকে আলাদা করার সময়েই তৈরি হয় এই ক্ষত।
ঠিক ধরেছেন। নাভির কথা বলছি।
ভারতীয় যোগশাস্ত্রে বর্ণিত মানব শরীরের ৭ টি চক্রের মধ্যে একটি অন্যতম হলো এই নাভিচক্র। তন্ত্রশাস্ত্রে এই নাভিচক্রের নাম “মণিপুর।” তন্ত্রশাস্ত্র অনুসারে মানুষের মধ্যে ঘুমিয়ে থাকা জীবাত্মাকে জাগাতে এই নাভিমূলের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। শ্রীরামকৃষ্ণ বলেছেন, “যখন সংসারে মন থাকে, তখন লিঙ্গ, গুহ‍্য ও নাভি মনের বাসস্থান….।”
তন্ত্রসাধনায় মানুষের মনকে এই নাভিদেশ থেকে প্রথমেই মুক্ত করার কথা বলা হয়েছে।
বিজ্ঞানী ডেসমণ্ড মরিসের মতে অনেক পুরুষের কাছে নাভি হলো নারী জননাঙ্গের প্রতীক। তাই নারীর নাভির মধ্যে পুরুষের যৌন আকর্ষণ রয়েছে। আর এই কারণেই প্রতি বছর বিশ্বের প্রায় ২ লক্ষ নারী প্লাস্টিক সার্জারি করে নাভিকে বাইরে থেকে শরীরের ভেতরে ঢোকান। বলা বাহুল্য, নাভিকুণ্ডলী সাধারণত শরীরের ভেতরেই থাকে, বাইরে থাকে মাত্র ৪ শতাংশ।
পুরাণ অনুসারে, ভগবান বিষ্ণুর নাভিপদ্ম থেকেই সৃষ্টি হয়েছে মানুষের।
গবেষকদের মতে মানুষের দৌড়ানো ও সাঁতার কাটার মতো কাজের ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে এই নাভি।
একসময় ব্রিটিশ ভারতে দুর্দান্ত ঠগি দস্যুরা পথ চলতি পথিকের পায়ে ফাবড়া অর্থাৎ ছোট লাঠি ছুঁড়ে তাকে মাটিতে ফেলে দিত। তারপর পায়ের বুড়ো আঙুলটা তার নাভির মধ্যে ঢুকিয়ে দিয়ে তাকে মেরে ফেলে সর্বস্ব কেড়ে নিত। লর্ড উইলিয়াম বেন্টিঙ্কের আমলে মেজর শ্লীম‍্যান শেষ পর্যন্ত এই ঠগিদের দমন করেছিলেন।
চিকিৎসাশাস্ত্রে এই নাভির নাম “umbilicus.”
মাতৃজঠর থেকে জন্মানো সকল স্তন্যপায়ী প্রাণীদের শরীরে নাভি আছে।
ভারতের প্রাচীন চিত্রকলায় নাভিসহ অনাবৃত পেটের নারীদেহ দেখা যায়। তবে ভারতীয় নারীরা সাধারণত নাভি ঢেকেই শাড়ি পরেন। তবে বিংশ শতাব্দীর মধ্যভাগের শুরুতে মেয়েদের নাভির নিচে শাড়ি পরা শুরু হয়। অভিনেত্রী থেকে মডেলরা এখনও তাই করেন।
কিন্তু এবার যা বলবো, তার জন্য প্রস্তুত তো ?
অবশ্য এই কথাটা না জানলে আজকের নাভি বৃত্তান্ত অসম্পূর্ণই থেকে যাবে।
জেনে রাখুন তাহলে।
শরীরের সব থেকে নোংরা জায়গাটা হলো এই নাভি।
কি, হোঁচট খেলেন তো ?
তবে আরও শুনুন।
মোট ৬৭ রকমের ব‍্যাকটিরিয়া বাস করে এই নাভিতে।
কাজেই নাভির দিকে বেশি তাকিয়ে লাভ নেই।
বরং নিজের নাভির যত্ন নিন। নাভীকে পরিচ্ছন্ন রাখুন। সুস্থ থাকুন।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here