মা ষষ্ঠী ও তাঁর বিড়াল বাহন রহস্য

    0
    Maa Shasthi and her cat vehicle mystery

    Last Updated on

    –উত্তম মণ্ডল

    হিন্দু ঘরের মায়েদের বড়ো প্রিয় দেবী মা ষষ্ঠী। তিনি সারা বছর ঘরের ছোট ছোট ছেলে-মেয়েদের ভালো রাখেন। আর সেজন্য মায়েদের কাছে মা ষষ্ঠীর এতো কদর।
    শিশু জন্মানোর ষষ্ঠ দিনে মা ষষ্ঠীর পুজোর আয়োজন করা হয় গৃহস্থ বাড়িতে। পুজোর উপচারের মধ্যে আবশ্যিকভাবে থাকে দোয়াত-কলম। দিনের বেলায় পুরোহিত ষষ্ঠীপুজো করে চলে যান । আর এদিন স্বয়ং বিধাতা পুরুষ নাকি রাতের বেলায় অলক্ষ্যে এসে শিশুর কপালে লিখে দিয়ে যান তার ভূত-ভবিষ্যৎ।
    এই মা ষষ্ঠীর বাহন হলো বিড়াল। ঘর থেকে বিড়াল যতই মাছ চুরি করে খেয়ে যাক, বিড়াল মারা যাবে না। কারণ, মা ষষ্ঠীর কোপ পড়বে। এত এব বিড়াল পাতের মাছ খেয়ে যাক্, অসুবিধে নেই ।

    আরো পড়ুন :সুখ-শয়নবিধি কথাসার

    বিড়াল নিয়ে আরেকটি বিধিনিষেধ আছে। বিড়াল রাস্তা পার হলে আর যাওয়া যাবে না, যতক্ষণ না কেউ এসে সে রাস্তা পেরোচ্ছে। কাজেই ট্র‍্যাফিক পুলিশ কোনো গাড়িকে থামাতে না পারলেও বিড়াল কিন্তু থামিয়ে দেয়।
    ভারতীয় আয়ুর্বেদ মতে, আসলে মেয়েদের বাধক রোগের নাম হলো “ষষ্ঠী।”
    আয়ুর্বেদ গ্রন্থ “বৈদ‍্যামৃত” অনুসারে —-
    “নেত্রে হস্তে ভবেৎ জ্বালা কোনো চৈব বিশেষত: ।
    লালা সংযুক্ত রক্তঞ্চ ষষ্ঠী কা বাধক: স্মৃত:।।
    মানদ্বয়ং এয়ং বাপি ঋতুহীনা ভবেৎ যদি।
    কৃশাঙ্গী ষষ্ঠীদোষেণ জায়তে ফলহীনতা।।”
    –চোখে-হাতে জ্বালা, ঋতু:স্রাব অপরিস্কার, বাধক ব‍্যাধিগ্রস্থা সন্তানহীনা নারী ষষ্ঠীরোগিণী।
    এর ওষুধ বলা হচ্ছে প্রাচীন কবিরাজী গ্রন্থ “ক্রিয়াকৌমুদী”-র পাতায়—
    “পূটদগ্ধ মার্জারসস্থ মেষশৃঙ্গী বচা মধু ।
    ঘৃতেন সহ পাতব‍্যং শূলং বন্তি ঋতুদ্ভবং।।”
    —অর্থাৎ, ধোঁয়ায় দগ্ধ বিড়ালের হাড়, মেষশৃঙ্গী, বচ ও মধু সমপরিমাণে নিয়ে ঘিয়ের সঙ্গে চেটে খেলে মেয়েদের ঋতুকালীন যন্ত্রণা দূর হয়।

    আরো পড়ুন :কালাজ্বরের ওষুধ আবিষ্কার

    হোমিওপ্যাথি ওষুধ মেফাইটিস্ বিড়াল থেকেই তৈরি হয়, যা মেয়েলি রোগে ব‍্যবহৃত হয়।
    তাছাড়া আয়ুর্বেদ মতে, বাধক ব‍্যাধিগ্রস্থা নারীদের বিড়াল স্পর্শ ফলদায়ক। এতে গর্ভাশয়ে আটকে থাকা ঋতু:স্রাব স্বাভাবিক হয়ে যায়।
    ডিপথেরিয়া রোগ সৃষ্টি করলেও বিড়ালের মধ্যে রয়েছে নারীকে প্রজননক্ষম করে তোলার শক্তি।
    তাই বিড়াল হয়ে গেছে মা ষষ্ঠীর বাহন‌ ।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here