জিহাদি অভিযানে সুলতান ইলতুৎমিস

    0
    jihadi campaign of Sultan Iltutmish

    Last Updated on

    –উত্তম মণ্ডল

    কুতুবউদ্দিন আইবকের পর দিল্লিতে শুরু হয় সুলতান ইলতুৎমিস রাজত্ব। তিনি রাজত্ব করেছেন ১২১০ খ্রিস্টাব্দ থেকে ১২৩৬ খ্রিস্টাব্দ পযর্ন্ত।
    ইলতুৎমিসের উপাধি ছিল “সুলতান-ই-আজম।”
    ১১৮০ খ্রিস্টাব্দে শামসুদ্দিন ইলতুৎমিসের জন্ম। ছোটবেলায় ভাইয়েরা তাঁর রূপ ও যোগ্যতায় ঈর্ষান্বিত হয়ে বেচে দেয় এক ক্রীতদাস ব‍্যবসায়ীর কাছে। তাঁকে কিনে নেন বুখারার কাজী সদর জং। এরপর হাতবদল হয়ে আসেন সুলতান কুতুবউদ্দিনের হাতে। কুতুবউদ্দিন তাঁকে নিয়োগ করেন “সার-জান্দার” অর্থাৎ প্রধান প্রহরী হিসেবে। পরে হোন “আমীর-ই-শিকার” এবং তারপর গোয়ালিয়রের আমীর ।

    আরো পড়ুন :আহম্মদ শাহ আবদালির আক্রমণের মুখে ভারতবর্ষ, নাগা সন্ন্যাসীদের আত্মবলিদান ও গোকুলনাথ রক্ষা

    এরপর সুলতান কুতুবউদ্দিন তাঁর মেয়ের সঙ্গে ইলতুৎমিসের বিয়ে দেন।
    সুলতান কুতুবউদ্দিনের মৃত্যুর পর তাঁর পুত্র আরাম শাহ সিংহাসনে বসেন। ১২১০ খ্রিস্টাব্দ নাগাদ আরাম শাহকে হত্যা করে ইলতুৎমিস সিংহাসনে বসেন।
    ১২৩৬ খ্রিস্টাব্দের ৩০ শে এপ্রিল দিল্লিতে মারা যান ইলতুৎমিস। দিল্লির মেহেরৌলির কুতুব কমপ্লেক্সে তাঁর কবর রয়েছে। তাঁর বংশ মামেলুক দাসবংশ নামে ইতিহাসে পরিচিত।
    সুলতান হয়েই ইলতুৎমিস বিধর্মীদের বিরুদ্ধে যথারীতি শুরু করেন তাঁর জিহাদি অভিযান। ভারতের মাটি থেকে বিধর্মীদের সমূলে উৎখাত করে ইসলাম প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে তিনি উলেমার পরামর্শ নেন। উলেমার পরামর্শমতো সুলতান ইলতুৎমিস ভারতের বিধর্মীদের আহ্বান জানান, হয় ইসলাম গ্রহণ করো, নতুবা মৃত্যুকে বেছে নাও।
    (–তথ্যসূত্র : Theory and Practice of Muslum State in India, pp.366-375 by K.S.Lal, Edited by A.G.Bostom, The Legacy of Jihad, p.456.)

    আরো পড়ুন :সুলতান মামুদের জিহাদি আক্রমণের মুখে ভারত

    সুলতান ইলতুৎমিসের সময় একজন দরবেশ ছিলেন কুতুবউদ্দিন বখতিয়ার কাকি। প্রয়োজনে এই দরবেশের কাছে পরামর্শ নিতেন বলেও জানা যায়।
    সব মিলিয়ে এক কথায় পূর্বসূরীদের মতোই সুলতান ইলতুৎমিস বিধর্মীদের বিরুদ্ধে তাঁর জিহাদি অভিযান চালিয়ে গেছেন ।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here