ভারতের এসব জায়গায় যেতে মানা

    0

    Last Updated on

    উত্তম মণ্ডল

    অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য হাতছানি দিয়ে ডাকলেও এবং ভারতবাসী হলেও ভারতের কয়েকটি জায়গায় যেতে পারবেন না আপনি। সরকারিভাবে সেসব জায়গায় যেতে মানা আছে। আসুন, দেখে সেইসব জায়গাগুলি। জায়গাগুলি হলো জম্মু-কাশ্মীরের আকশাই চিন, মধ্যপ্রদেশের চম্বল নদীর উপত্যকা, দক্ষিণ ভারতের কেরল রাজ‍্যের সাইলেন্ট ভ‍্যালি ন‍্যাশনাল পার্ক ও ভারত মহাসাগরের নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ।
    এবার এইসব জায়গাগুলি নিয়ে একটু খোঁজ-খবর করা যাক্। প্রথমেই দেখি
    ১) জম্মু-কাশ্মীরের আকশাই চিন : কাশ্মীর উপত্যকার ভয়ংকর জায়গার মধ্যে একটি হলো এই আকশাই চিন। জায়গাটি নিয়ে ভারত-চিন দ্বন্দ্ব বহুদিনের। যেকোনো মানুষের এই জায়গায় যেতে মানা।
    ২) মধ্যপ্রদেশের চম্বল নদীর অববাহিকা : যমুনার উপনদী হলো চম্বল। এটি বৃহত্তম গঙ্গা অববাহিকার অংশ। দৈর্ঘ্য ৯৬০ কিলোমিটার। দূষণমুক্ত নদী চম্বল। দু’রকম প্রজাতির কুমীর ও আট প্রজাতির কচ্ছপ বিখ্যাত এখানে। এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ভ্রমণপিপাসু মানুষকে টানে। কিন্তু দুর্দান্ত ডাকাতদের ঘাঁটি বলে সাধারণ মানুষের এখানে যেতে মানা।
    ৩) কেরলের সাইলেন্ট ভ‍্যালি ন‍্যাশনাল পার্ক : দক্ষিণ ভারতের নারকেলের দেশ কেরল। ২০১৪ সালে মাওবাদী হানার পর থেকে সেখানে যাওয়ার ব‍্যাপারে সরকারি নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাই প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর অপরূপ কেরলের এই পার্কে পর্যটকদের ডাকলেও সেখানে যেতে মানা।
    ৪) ভারত মহাসাগরের নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ : এটি ভারতের মূল ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন ভাসমান পান্না দ্বীপ ও পাথরের একটি সমষ্টি। বর্তমানে এই দ্বীপপুঞ্জের গ্রেট নিকোবর দ্বীপকে সংরক্ষিত বলে ঘোষণা করেছে ইউনেস্কো। খ্রিস্টিয় নবম শতাব্দীতে আরব বেদুইনদের কাছ থেকে এই জায়গার কথা জানা যায়।
    এখানে একমাত্র শোমপেন্ উপজাতির বাস রয়েছে। বাইরের মানুষদের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ নেই। তারা মৃত ব‍্যক্তির আত্মার সঙ্গে নাকি কথা বলে! দ্বীপপুঞ্জের মোট আয়তন ১৭৬৫ বর্গ কিলোমিটার। এখানকার প্রাকৃতিক পরিবেশের সঙ্গে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মিল আছে। স্থানীয় প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে কিছু জায়গায় যাওয়া যায়। তাই সাধারণ মানুষের পক্ষে এখানে যাওয়া অসম্ভব।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here