এনকাউণ্টার : বাণিজ্যনগরীর দীর্ঘ কয়েকদশকের অপরাধজগতের কাহিনী (পর্ব-৭)

0

Last Updated on

লেখক শিবাজী প্রতিম

মনোহর সুর্ভের মৃত্যুর পর মুম্বই পুলিশের সাফল্যে পুলিশের লোকেদের আত্মবিশ্বাস হঠাৎই বেড়ে যায়। তবে বেশিদিন যে তা স্থায়ী হয়নি তা বলাই বাহুল্য। কারণ ঠিক এই সময় ছোট, বড়, মাঝারি একাধিক গ্যাং তাদের সাম্রাজ্য বিস্তার করতে থাকে। এইসমস্ত গ্যাংয়ের মধ্যে উল্লেখযোগ্য নাম ছিল ডি-কোম্পানি, অরুন গাউলি গ্যাং, অশ্বিন নায়েক গ্যাং, রবি পুজারী গ্যাং, ইজাজ লাকডাওয়ালা গ্যাং, আলি বুদেশ গ্যাং ইত্যাদি। তবে এদের মধ্যে সবচেয়ে ভয়ঙ্কর এবং ক্রিয়াকলাপের বিস্তারের দিক থেকে বড় ছিল ডি-কোম্পানি। প্রায় একইসময় থেকে বলিউডের সাথে মুম্বই আণ্ডারওয়ার্ল্ডের যোগসাজশের অভিযোগও উঠতে শুরু করে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যেত বেআইনি চোরাচালান থেকে উদ্বৃত্ত মুনাফা ফিল্ম প্রোডিউসিংয়ের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হত এবং সেটা হতও খুব সূচতুরভাবে বেনামে যাতে প্রশাসনের নাগালে না আসে। এইসব গ্যাংয়ের ক্রিয়াকলাপে বলিউডের পাশাপাশি প্রশাসনের একাংশের সাথেও অন্ধকার জগতের যোগসাজশের অভিযোগ প্রায়শই উঠত। যদিও তার প্রমাণ কোনোদিনই সর্বসমক্ষে আসেনি আজ অবধি।

আরও পড়ুন – এনকাউণ্টার : বাণিজ্যনগরীর দীর্ঘ কয়েকদশকের অপরাধজগতের কাহিনী (পর্ব-৪)

আশির দশকে মুম্বই পুলিশের বড় সাফল্যগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল মনোহর অর্জুন সুর্ভের এনকাউণ্টার যা মুম্বই পুলিশের দ্বারা সংগঠিত প্রথম এনকাউণ্টার বলে মানা হয়। এ ছাড়া একাধিক ছোট ও মাঝারি মাপের গ্যাংয়ের সদস্যদের এনকাউণ্টারও সংগঠিত হয় এইসময় যার পুরো তথ্য কখনোই সব প্রকাশ্যে আসেনি। একটি সূত্র অনুযায়ী এই দুদশকে প্রায় ৪০০র উপর এনকাউণ্টারে বহু অপরাধীকে পুলিশ মেরে ফেলে। তবে আশির দশকে মনোহর সুর্ভে ছাড়া বড় কোনো উল্লেখযোগ্য গ্যাংয়ের নেতা বা সদস্যকে পুলিশ একইরকমভাবে বাগে আনতে পারেনি।

আরও পড়ুন – এনকাউণ্টার : বাণিজ্যনগরীর দীর্ঘ কয়েকদশকের অপরাধজগতের কাহিনী (পর্ব-৫)

এই সময় পুলিশের বহু বাঘা বাঘা অফিসারের উত্থান ঘটে যারা ক্রাইম ব্রাঞ্চের এনকাউণ্টার স্কোয়াডে কাজ করার সুযোগ পান। পরবর্তীকালে মিডিয়ার একাংশ বলিউড তাদের কার্যত ‘কাল্ট ফিগারে’ পরিণত করে বহু নিউজ স্টোরি এবং ছবি বানিয়ে। এদের মধ্যে কয়েকজন হলেন দয়া নায়েক, ভ্যালেনটিন ফার্ণান্ডেজ, প্রদীপ শর্মা, রবীন্দ্রনাথ আঙ্গরে, প্রফুল ভোঁসলে, রাজু পিল্লাই, বিজয় সালাসকর, সচীন ওয়াজে, শিবাজী কলেকর এবং সঞ্জয় কদম প্রভৃতি। এনারা প্রত্যেকেই ছিলেন এনকাউণ্টার স্পেশালিষ্ট এবং মুম্বই আণ্ডারওয়ার্ল্ডের কুখ্যাত সব অপরাধীদের কার্যত যম। এদের মধ্যে আবার যার নাম একেবারে সবার প্রথমে আসবে তিনি হলেন ইন্সপেক্টর দয়া নায়েক।

আরও পড়ুন – এনকাউণ্টার : বাণিজ্যনগরীর দীর্ঘ কয়েকদশকের অপরাধজগতের কাহিনী (পর্ব-৬)

(চলবে)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here