দূর্গা পুজোয় আজানের সুরে বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দু কলকাতার নামী পুজো

1

Last Updated on

বেলেঘাটা ৩৩এর পল্লী | কলকাতার নামী পুজোর মধ্যে একটা | প্রতিবারের মতই এবারও উপচে পড়া ভিড় | ফি বছর নিত্য নতুন ভাবনায় তাক লাগিয়ে দেন এই পুজোর উদ্যোক্তারা | কলকাতার একাধিক পুরষ্কারের দাবিদার এই পুজো | তাই দ্বিতীয়া ,তৃতীয়া থেকেই মানুষের ঢল নেমেছে এবারও | কিন্তু এবার সুখ্যাতির পাশাপাশি বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দুও এই পুজোটি | কেন ? কারণ দর্শনার্থীরা জানান মাঝে মাঝেই এই পুজোর মন্ডপ থেকে ভেসে আসছে আজানের সুর | হিন্দু দেবীর আরাধনায় এহেন কান্ডে মোটেই খুশি নন দর্শকদের একাংশ | ইতিমধ্যেই তা নিয়ে সমালোচনা এমন জায়গায় পৌঁছয়, যে এই পুজোর বিরুদ্ধে করা একটি পোস্ট ভাইরাল হয়ে যায় অতি দ্রুত |

আরও পড়ুন:নির্ভুল উচ্চরাণ ও বিশুদ্ধ উপাচারের জন্য চতুষ্পাঠীর টোলে পাঠ নিচ্ছেন দুর্গাপুজোর পুরোহিত

কিন্তু কেন দুর্গাপুজোতে আজানের সুর ভেসে আসছে | অনুসন্ধানে জানা গেল সর্বধর্ম সমন্বয়ের বার্তা দিতেই নাকি এই পদক্ষেপ পুজো উদ্যোক্তাদের | তবে কি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পথ অনুসরণ করেই কি এই সিদ্ধান্ত ? তৃণমূল সুপ্রিমো তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সব সময়ই সব ধর্মের সমন্বয়ের পক্ষে সওয়াল করে এসেছেন | রাজ্যের নানা প্রকল্পের দিকে তাকালে দেখা যায়,সেখানে যেন ঈষত হলেও সুযোগ-সুবিধের দিক থেকে এগিয়ে রাজ্যের সংখ্যালঘুরা | মুখ্যমন্ত্রীর এই পদাঙ্ক অনুসরণ করেই কি তবে এই পুজো উদ্যোক্তাদের উদ্যোগ| এই ঘটনার অবশ্য সমালোচনা করেছেন
অনেকেই | তাদের যুক্তি,সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার দায় কি তবে এখানকার সক্যাগুরুদের ? হিন্দু পুজোতে আজান শোনানো ছাড়া কি এই সম্প্রীতির পরিচয় অন্য কোন ভাবে দেওয়া যেত না ? সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির নজির রূপে কখনও কি মসজিদ থেকে কোন গায়ত্রী মন্ত্র শোনা গিয়েছে ? যদি না হয় ,তবে বারবার কেন এভাবে হিন্দু ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত হানা বারবার ?

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here